ঢাকা,বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০

উখিয়ায় বিশ্বমানের উম্মুক্ত কারাগারের জায়গা পরিদর্শনে (আইজি প্রিজন)

ফারুক আহমদ, উখিয়া ::  উখিয়া হলদিয়া পালংয়ের উত্তর বড়বিল এলাকায় প্রস্তাবিত বিশ্ব মানের সু-বিশাল ওপেন কারাগার ও পুনঃবাসন কেন্দ্রের নির্ধারিত জায়গা পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ কারা মহা পরিদর্শক আইজিপি (প্রিজন) বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ কে এম মোস্তফা কামাল পাশা। সবুজ অরণ্য বেষ্টিত বিশাল পাহাড় ও নির্জন পরিবেশ বান্ধব জায়গা দেখে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন। বুধবা ১১ সেপ্টেম্বর সকালে আইজিপি (প্রিজন) সরজমিনে পরিদর্শনে আসেন। ১৬০ একর নিজস্ব জায়গায় ওপেন কারাগারটি নির্মাণ করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণলায়। উক্ত কারাগার নির্মাণের লক্ষ্যে ভূমি অধিগ্রহণ ও হস্তান্তর প্রক্রিয়া ইতি মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।
উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের উত্তর বড়বিলে প্রস্তাবিত এলাকা পরিদর্শন শেষে গ্রামবাসীর সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইজিপি (প্রিজন) বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি নির্দেশেই এতদঞ্চলে বাংলাদেশে এই প্রথম বিশ্বমানের ওপেন কারাগার নির্মাণ হতে যাচ্ছে। এটি হলে উখিয়া নামক উপজেলাটি ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ হবে। তিনি আরো বলেন, জেল খানায় বন্দিরা আমাদের ভাই, বোন ও দেশেরই লোক। তাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করতে হবে। তাই বর্তমান সরকার বন্দি কয়েদিদের কে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষতা অর্জন করে পূন:বাসনের জন্য ওপেন কারাগারের উদ্যোগ নিয়েছে।

। হলদিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার কারাগারের জেল সুপার , বেসরকারি কারাপরিদর্শক, উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ( তদন্ত) নুরুল ইসলাম মজুমদার, , ও স্থানীয় বাসিন্দা বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আজিজুল হক চৌধুরী,। পরিদর্শনকালে মাষ্টার শফিকুর রহমান যুবনেতা জসিম আহমদ সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে উত্তর বড়বিল গ্রামে পরিত্যক্ত ৩শত ১৬০ একর জমিতে ওপেন কারাগার ও পুনঃবাসন কেন্দ্রটি হবে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কারাগার। উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রাথমিক কাজ শুরু করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে স্থান নির্বাচন, সম্ভাব্যতা যাচাই, প্রাক্কলন তৈরী ও ভূমি অধিগ্রহণ কাজ সম্পন্ন করা হয়। ওপেন কারাগার ও পুনঃবাসন কেন্দ্র নির্মানে প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৪শ কোটি টাকা।
কারা অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, পাবলিক বা ওপেন কারাগার ও পুনঃবাসন কেন্দ্রে প্রচলিত জেলখানার মত আসামিদের নির্দিষ্ট স্থানে ও লকআপে বন্দি রাখা হবে না। আসামিরা মুক্ত বিহঙ্গের মত ঘুরে বেড়াতে পারবেন। বিভিন্ন ধরণের কুটির, হস্তশিল্প, মৎস্য চাষ, ফার্ণিচার তৈরী, হাসমুরগী পালন সহ গবাদি পশু মোটা তাজা করণ সহ আয় বর্ধন মূলক কাজ করতে পারবে কয়েদিরা। শুধু তাই নয় কৃষি জমিতে চাষাবাদ করে পারিশ্রমিক ও আয় করে কারাগারে বসে সংসারের জীবিকা নির্বাহ করা যাবে। এমন কি পরিবার পরিজনের সাথে মোবাইলে কথাবলা, দেখা সাক্ষাৎ করার সুযোগ থাকবে।

স্থানীয় চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলম বলেন উত্তর বড়বিল এলাকায় ওপেন কারাগার ও পুনঃবাসন কেন্দ্র নির্মানে বর্তমান সরকার যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন তা ইতিবাচক। এর ফলে অবহেলিত এলাকার অভুতপূর্ব উন্নয়ন ও স্থানীয় অধিবাসীদের জীবণযাত্রার মান পরিবর্তন হবে।

পাঠকের মতামত: