ঢাকা,শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২

লামায় সাত ইউনিয়নেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ী

লামা প্রতিনিধি :: দু’একটি বিছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে গতকাল বৃহস্পতিবার লামা উপজেলার ৭ ইউনিয়নে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে ৭ ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এ নির্বাচনে পুরুষ ভোটারের চেয়ে মহিলা ভোটারের উপসি’তি ছিল বেশি।
এদিকে, লামা সদর ইউনিয়নের কয়েকটি কেন্দ্র এবং রুপসী পাড়া ইউনিয়নের কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণার পর পরাজিত প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা নির্বাচনে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের আসার পথে বাধা সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। লামা ইউপি নির্বাচনের ফলাফল সংগ্রহ ঘোষণা কেন্দ্রের প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী জানা যায়, ১নং গজালিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়মী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাথোয়াইচিং মার্মা নৌকা প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৭৪৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ বাবুল হোসেন মোটর সাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ৮৪৭ ভোট। ২ নং লামা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়মী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মিন্টু কুমার সেন নৌকা প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ৬৮১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আক্তার কামাল মোটর সাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৬৪৫ ভোট। ৩ নং ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ নুরুল হোসাইন নৌকা প্রতীকে ৬ হাজার ৪২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ জাকের হোসেন মজুমদার আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৯৪ ভোট। ৪নং আজিজনগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ জসিম উদ্দিন নৌকা প্রতীকে ৩ হাজার ৭১১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী রশিদ আহমদ আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৫৬২ ভোট। ৫নং সরই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ ইদ্রিছ নৌকা প্রতীকে ৯ কেন্দ্রের মধ্যে ৮ কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফলে পেয়েছেন ৪ হাজার ৪৬১ ভোট। একই সমান কেন্দ্রে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আবু হানিফ আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২০৭ ভোট। ৬ নং রুপসী পাড়া ই্‌উনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ছাচিং প্রু মার্মা নৌকা প্রতীকে ৩ হাজার ৪৫৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ২৮৫ ভোট। ৭ নং ফাইতং ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ ওমর ফারুক নৌকা প্রতীকে ৩ হাজার ৩২৫ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল জলিল চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ২ হাজার ৫১৫ ভোট।
এর আগে সকাল ৮ টা থেকে উপজেলার ৭ ইউনিয়নের ৬৪ টি ভোট কেন্দ্রে ২শ’ ভোট কক্ষের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকালে প্রথম দিকে ভোটারদের উপসি’তি কিছুটা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে প্রতিটি কেন্দ্রেই ভোটার বাড়তে থাকে। বিভিন্ন কেন্দ্র সরেজমিন পরিদর্শনকালে প্রতিটি কেন্দ্রেই মহিলা ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। ভোট গ্রহণ শেষে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে কেন্দ্রগুলোতে ভোট গণনা করে প্রিজাইডিং অফিসার ফলাফল ঘোষণা করেন।
এদিকে, ৩ নং ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের পরাজিত স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. জাকের হোসেন মজুমদার তার ইউনিয়নের ফাঁসিয়াখালী হেডম্যান পাড়া কেন্দ্রে ৪০০ ভোট কারচুপির অভিযোগ করেছেন। এছাড়া সরই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু হানিফ তাকে মারধর করা ও ভোট কারচুপির অভিযোগ করেছেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার মো. আলমগীর হোসেন জানান, নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে কারো কোনো আপত্তি থাকলে তিনি আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করবেন। সেখানেও যদি তিনি সন্তষ্ট না হন তাহলে উ”চ আদালতে মামলা করতে পারেন।

পাঠকের মতামত:

 
error: Content is protected !!