ঢাকা,শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

চকরিয়ায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকল শ্রেণীতে ডিজিটাল সিস্টেমে ক্লাস চালু

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া ::  প্রাথমিক ও গনশিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনার আলোকে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সবশ্রেণীতে পাঠদান কার্যক্রম ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনা হয়েছে। চকরিয়া উপজেলা প্রশাসন এবং উপজেলা শিক্ষা অধিদপ্তর উপজেলার ১৪৫টি বিদ্যালয় থেকে বাছাই করে এবছর বাটাখালী-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে এই প্রকল্পে সংযুক্ত করেছেন।

মুলত ডিজিটাল সিস্টেমে সর্বশ্রেণীতে পাঠদান কার্যক্রম চালুর মাধ্যমে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দক্ষতা মানোন্নয়ন এবং প্রযুক্তিসমৃদ্ধ মানবসম্পদ গড়ার অভিপ্রায়ে বিদ্যালয়ে এই কর্মসুচি শুরু করা করেছেন। বৃহস্পতিবার ১৫ অক্টোবর চকরিয়া পৌরসভার বাটাখালী-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ডিজিটাল ক্লাস কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ সামনুল তাবরীজ।

বাটাখালী-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওয়ারেসা বেগমের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চকরিয়া উপজেলা শিক্ষা অফিসার গুলশান আক্তার ও সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু জাফর। উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, এসএমসি কমিটির নেতৃবৃন্দ, অভিভাবক ও সুধীজন। বিদ্যালয়টিতে এখন থেকে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণীতে পাঠদান চলবে ডিজিটাল সিস্টেমে।

চকরিয়া উপজেলা শিক্ষা অফিসার গুলশান আক্তার বলেন, প্রাথমিক ও গনশিক্ষা অধিদপ্তর সারাদেশের প্রতিটি উপজেলা থেকে একটি বিদ্যালয়ের সর্বশ্রেণীতে পাঠদান কার্যক্রম ডিজিটাল সিস্টেম চালু করেছে। এই প্রকল্পের আওতায় চকরিয়া উপজেলার ১৪৫টি বিদ্যালয়ের মধ্য থেকে বাটাখালী-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নির্বাচিত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ডিজিটাল সিস্টেমে সর্বশ্রেণীতে পাঠদান কার্যক্রম চালুর মাধ্যমে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় দক্ষতা মানোন্নয়ন এবং প্রযুক্তিসমৃদ্ধ মানবসম্পদ গড়ার অভিপ্রায়ে সরকার এই কর্মসুচি চালু করেছেন। সেইজন্য ইতোমধ্যে বিদ্যালয়টিকে সম্পুর্ণরূপে ডিজিটাল কার্যক্রমের আওতায় আনা হয়েছে। সরবরাহ করা হয়েছে সবধরণের প্রযুক্তিগত ডিজিটাল সামগ্রী।

চকরিয়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গুলশান আক্তার বলেন, করোনাকালীন সময়ে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া চালু রাখতে উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন এবং একটি পৌরসভা এলাকার ১৪৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া নিশ্চিতে চালু করা হয় অনলাইন ক্লাস কার্যক্রম। আর এই কার্যক্রমটি সুচারুভাবে পরিচালনা নিশ্চিত করতে কাজ করছেন প্রযুক্তিতে বিশেষ প্রশিক্ষন নেয়া ৪২৮জন শিক্ষক শিক্ষিকা।

তিনি আরও বলেন, উপজেলার ১৪৫টি বিদ্যালয়ে কর্মরত ৯৯০জন শিক্ষকের মধ্যে আমরা আগে থেকে ৪২৮জন শিক্ষক শিক্ষিকা আইসিটি বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষন দিয়েছি। মুলত করোনা সময়ে উল্লেখিত আইসিটি বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত ৪২৮জন শিক্ষককে প্রতিটি বিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাসের কার্যক্রমে যুক্ত করেছি।

বিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস নিশ্চিত করতে উপজেলার সকল আইসিটি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকদের একটি গ্রুপে যুক্ত করা হয়েছে। প্রতিটি ক্লাস্টারের আইসিটি প্যানেলভুক্ত শিক্ষকদের মধ্যে থেকে একজন হোস্ট হয়ে প্রতিসপ্তাহে ক্লাস্টারের আইসিটি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নিয়ে জুম মিটিংয়ে অংশ নিচ্ছেন। মুলত এরই অংশহিসেবে কার্যক্রম এগিয়ে থাকা বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে বাটাখালী-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সরকারি বিশেষ কর্মসুচির আওতায় সংযুক্ত করা হয়েছে। আশাকরি সবার আন্তরিক সহযোগিতা থাকলে আমরা ডিজিটাল শ্রেণী কার্যক্রম সফলতা পাবো।

 

পাঠকের মতামত: