ঢাকা,রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

মালিক শ্রমিকদের উত্তেজনা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবৈধ ডাম্পারে খাদ্য সামগ্রী পরিবহন বন্ধের দাবি 

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবৈধ ডাম্পারে খাদ্য সামগ্রী পরিবহন বন্ধের দাবি

ফারুক আহমদ , উখিয়া তাং ১২ সেপ্টেম্বর

উখিয়া টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিভিন্ন দাতা সংস্থার ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী ফিটনেস ও লাইসেন্স বিহীন ডাম্পার গাড়ি যোগে পরিবহন করছে বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ট্রাক মালিক, ড্রাইভার ও শ্রমিকদের মাঝে চরম অসন্তোষ সহ উত্তেজনা বিরাজ করছে।
বৈধ কাগজ পত্র ছাড়াই রোড পারমিট বিহীন ডাম্পার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর স্থাপিত বিভিন্ন চেকপোষ্টকে ম্যানেজ করে চিহ্নিত সিন্ডিকেট এসব অবৈধ গাড়ি পণ্য পরিবহন করছে বলে এমন অভিযোগ করেছেন উখিয়া ট্রাক পিকআপ মালিক শ্রমিক যৌথ ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ । সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সমাধানে ব্যর্থ হলে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করবে বলে জানান পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠন।
এদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবৈধ ডাম্পা যোগে ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী পরিবহন বন্ধের দাবিতে জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি নাঈমুল হক চৌধুরী টুটুল ও সাধারণ সম্পাদক এস্তেফিজুর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার বৈঠক করেছেন বলে জানা গেছে।
এর আগে উখিয়া পরিবহন সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা যৌথভাবে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি নাঈমুল হক চৌধুরী টুটুল বলেন লাইসেন্স ছাড়া ও রোড পারমিট বিহীন ডাম্পার যোগে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পণ্য পরিবহনের কারণে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে শত শত শত ট্রাক ড্রাইভার বেকার হয়ে পড়েছে আর মালিকগণ ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না। এটি খুব দুঃখজনক। তাই অবৈধ ডাম্পার যোগে পণ্য পরিবহন বন্ধ করা জরুরী। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার বিষয়টি আমলে আনেন এবং সুরাহা করার আশ্বস্ত করেছেন।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, ডব্লিউএফপি সহ বিভিন্ন দাতা সংস্থা উখিয়া-টেকনাফের ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রাণ সামগ্রী সহ সহ বিভিন্ন খাবার সামগ্রী সরবরাহ করে আসছেন। অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কক্সবাজার সীপ্যালেস ও উত্তরণ নামক স্থানে ডাব্লিউএফপির গোডাউন রয়েছে।
মালিক সমিতির নেতা আব্দুর রহিম ও গিয়াস উদ্দিন জানান ইদানীং হঠাৎ করে বৈধ ট্রাক বাদ দিয়ে কাগজপত্র বিহীন ডাম্পার যোগে ত্রাণ সামগ্রী পরিবহন শুরু করেছে ডব্লিউএফপি সহ বিভিন্ন দাতা সংস্থা । তারা আরো বলেন, এসব ডাম্পার গাড়ি চালকের কোন লাইসেন্স নেই। এমনকি রুট পারমিটও নেই। গাড়ির সামনে এনজিও সংস্থার ব্যানার লাগিয়ে দিয়ে জরুরী পণ্য পরিবহনের নামে প্রশাসনের চোখে ধুলো দিচ্ছে। এ কারণে সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় নাগরিক সমাজ।
গুরুতর অভিযোগ উঠেছে, টেকনাফ সড়কে পুলিশের একাধিক চেকপোস্ট রয়েছে। কোট বাজার, উখিয়া স্টেশন ও মরিচ্যা বাজারে রয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। এছাড়াও তুলাবাগান ও বালুখালীতে রয়েছে হাইওয়ে পুলিশ। এসব চেকপোস্ট মাসোহারা দিয়ে রুট পারমিট বিহীন ডাম্পার গাড়ি প্রতিদিন ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী পরিবহন করছে।
উখিয়া উপজেলা ট্রাক-পিকআপ মালিক সমিতির সভাপতি আবদুল মালেক ও সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন বলেন, সরকারকে রাজস্ব দিয়ে রোড পারমিট সহ বৈধ কাগজপত্র নিয়ে শত শত ট্রাক রয়েছে। রোড পারমিট ও লাইসেন্স বিহীন ডাম্পার গাড়ির কারণে আজ বৈধ ট্রাক গুলো রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পণ্য পরিবহন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে ট্রাক মালিকগণ ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ থেকে শুরু করে লাইসেন্স প্রাপ্ত বৈধ ড্রাইভাররা বেকার হয়ে পড়বে।

সরোজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে, প্রতিদিন কক্সবাজার এবং উখিয়ার বিভিন্ন স্থানে ডব্লিউএফপি সহ দাতা সংস্থার প্রতিদিন অন্তত ২ শতাধিক ডাম্পার যোগে সামগ্রী পরিবহন করে আসছে। অধিকাংশ ডাম্পার গাড়ির নম্বর প্লেইট পর্যন্ত নেই।
দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে ট্রাক-পিকআপ মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দকে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী আশ্বস্ত করে বলেছেন, আমি প্রতি মাসেই অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ডাম্পার আটকসহ লাইসেন্সবিহীন ড্রাইভার কে জেল-জরিমানা করেছি। এসব ডাম্পার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রাণ সামগ্রী পরিবহন বিষয়টি শরণার্থী ও প্রত্যাবাসন কমিশনারসহ জেলা প্রশাসক কে জানানোর জন্য পরামর্শ দিয়েছেন।
অনেকে বলেছেন , ঢাকা কেন্দ্রিক একটি সিন্ডিকেট পরিবহন ব্যবসা টি নিয়ন্ত্রণ করছেন। সোনালী এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ডাব্লিউ এফপিকে ম্যানেজ করে ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পণ্য পরিবহনে দায়িত্ব পালন করছেন। অনেক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিরা জানান, সোনালী এন্টারপ্রাইজ কিভাবে রুট পারমিট ও কাগজপত্র বিহীন ডাম্পার যোগে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রাণ সামগ্রী সরবরাহ করছে বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার।

পাঠকের মতামত: