ঢাকা,শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্ক এলাকা থেকে কৃষকের লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া :: চকরিয়ায় আবদুল খালেক (৫৫) নামে এক কৃষকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার (২০ জানুয়ারি) দুপুর দুইটার দিকে পরিবারের লোকজন উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের পাহাড়ি এলাকা থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করে নিহতের স্বজনরা।

নিহত আব্দুল খালেক উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের মগছড়াজুম এলাকার মোক্তার আহমদের ছেলে।

নিহত কৃষক আব্দুল খালেকের পরিবারের বরাত দিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চকরিয়া নিউজকে বলেন, সোমবার ভোররাতে পরিবারের লোকজনের অগোচরে বাড়ি থেকে বের হয় কৃষক আবদুল খালেক। সকাল ১০টা পর্যন্ত তিনি বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের সদস্যর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। একপর্যায়ে দুপুর ২টার দিকে ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারী পার্কের পাহাড়ী এলাকায় তার মরদেহটি উদ্ধার করে নিহতের স্বজনরা।

ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের সহকারী তত্বাবধায়ক মাজাহারুল ইসলাম বলেন বিষয়টি আমি জানিনা এবং এব্যাপারে আমাদেরও কেউ জানায়নি।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, রাতের সাফারী পার্ক এলাকা অপরাধীদের আখড়ায় পরিনত হয়। রাতের সাফারী পার্ক এলাকাটি একটু নিরিবিলী হওয়ায় বিভিন্ন এলাকার অপরাধীরা জড়ো হতে পার্ক এলাকায়।রাতের সাফারী পার্ক এলাকায় চলে পতিতাদের আনাগুনা, মদ, জুয়া, খুন, ধর্ষণ, চুরি ও ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপরাধী কর্মকান্ড।

পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে অবহিত করে মরদেহটি নিহতের বাড়িতে নিয়ে আসে পরিবারের লোকজন। ইউপি চেয়ারম্যান আরও বলেন, বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করা হলে সন্ধ্যায় পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। পরে মরদেহের প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করেন চকরিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মহসিন। নিহতের গলায় ও শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলেও জানান ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান চকরিয়া নিউজকে বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যানের কাছ থেকে খবর পেয়ে নিহত কৃষক আবদুল খালেকের মরদেহ উদ্ধারের পর লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করা হয়। নিহতের গলায়, পিঠে, হাতে ও অন্ডকোষে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে বলেও জানান তিনি।

পাঠকের মতামত: