ঢাকা,রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নিবার্চনে প্রার্থীদের বিরামহীন প্রচারনা  

এম আবুহেনা সাগর, নিজস্ব প্রতিবেদক ::  দীর্ঘসময় পর হলেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনা মুখর পরিবেশে আগামী ১৫ই ডিসেম্বর অনুষ্টিত হতে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাঙ্গন ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির বহুল প্রতি ক্ষিত নিবার্চন। সেদিনই অভিভাবকদের প্রত্যক্ষ ভোটে নিবার্চিত হবে সদস্য প্রার্থীরা। বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য পদে নিবার্চনে মাঠে নেমেছেন নয়জন প্রার্থী। তারা হলেন,আবদু রহিম প্রতীক ১,এস এম সরওয়ার কামাল প্রতীক ২, কামাল উদ্দিন প্রতীক ৩,ছৈয়দ আলম প্রতীক ৪,জানে আলম প্রতীক ৫,নুরুল হাকিম প্রতীক ৬,রমজান আলী প্রতীক ৭,শফিউল আলম প্রতীক ৮ এবং
শহিদ উল্লাহ মিয়াজী ৯ নং প্রতীক নিয়ে নিবার্চন করছেন। প্রার্থীরা নিবার্চনী লড়াইয়ে একে অপর কে ছাড় দিতে নারাজ। যে যার যার অবস্থান থেকে মাঠে নেমেছেন নানা কলাকৌশল নিয়ে। জয়ের স্বপ্নকে বুকে ধারন করে প্রচার প্রচারনায় ব্যস্তমুখর হয়ে পড়েছেন অভিভাবক সদস্য পদে প্রার্থীরা। তারা সকাল থেকে দুপুর,বিকেল থেকে রাত অবদি পর্যন্ত ভোটারদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছে। তবে কজন প্রার্থী নিবার্চনী দৌড়ঝাপে এগিয়ে রয়েছেন। শীতকে উপেক্ষা করে ভোটারদের ধারে ধারে বা ঘরে ঘরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ভোটের আশায় প্রার্থীরা। ঈদগাঁও,জালালাবাদ এবং ইসলামাবাদের প্রত্যান্ত গ্রামগঞ্চের অভিভাবক ভোটারদের কদর বেড়েছে নিবার্চনকে ঘিরে। পাশাপাশি বিদ্যালয়ের শিক্ষার মানসহ সর্বোপরি যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যাক্তিকে ভোটের মাধ্যমে বেচে নেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে। ৯ শত ৩৩ জন ভোটারদের সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রক্ষা করে যাচ্ছেন তারা। নিবার্চনী প্রচারনাকালীন অভিভাবক মহলের মুখে শোভা পাচ্ছেন ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি মরহুম জসিম উল্লাহ মিয়াজীর ছোট ভাই হাফেজ শহিদ উল্লাহ মিয়াজী,মাইজ পাড়ার সুপরিচিত ব্যাক্তি, শিক্ষানুরাগী এসএম সরওয়ার কামাল,তারুন্যের প্রতীক শফিউল আলমের নাম। অন্য প্রার্থীরাও সমানতালে ভোটের লড়াইয়ে মাঠে অবস্থান কর ছেন। বর্তমান ও প্রাত্তন শিক্ষার্থীদের মতে,  বিদ্যালয় সু-শৃংখল,শান্তিপূর্ণ পরিবেশ এবং মান সম্মত লেখাপড়া ফিরিয়ে আনতে যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যাক্তির পক্ষে রায় দিয়ে ঐতিহ্যবাহী এই বিদ্যাপীঠকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহবান অভিভাবকদের নিকট।
উল্লেখ্য,বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নিবার্চনে অভিভাবক সদস্য পদে নিবার্চিত হবেন চারজন পুরুষ ও একজন মহিলা সদস্যা। তবে একজন পুরুষ অভিভাবক ৪টি ভোট দিতে পারবে। আর মহিলা অভিভাবক ৫টি ভোট দিতে পারবে।

পাঠকের মতামত: