Home » কক্সবাজার » সমুদ্র পাড়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ‘ঈদ আনন্দ’

সমুদ্র পাড়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ‘ঈদ আনন্দ’

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

নিজস্ব প্রতিবেদক :   সারাদিন কাগজ আর প্লাস্টিক কুড়িয়ে দিন কাটে পথশিশু রায়হানের (১২)। অন্ধকার যখন প্রকৃতির বুকে ভর করে, তখন তার ঠিকানা হয় ফুটপাতে বা মার্কেটের নিচে। ময়লা-আবর্জনার স্তুপে জীবিকা খুঁজে বেড়ানো রায়হানের কাছে ‘ঈদ’ হলো অন্য যেকোন দিনের মতই। ঠিকমত যার খাবার জুটে না, তার আবার ঈদ ? তার উপর বাবা-মা আছে কি নেই, জানে না সে।

রায়হানের মত সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য শুক্রবার ঈদ আনন্দ ও ভোজনের আয়োজন করা হয় সমুদ্র সৈকতের পাড়ে। সবাইকে (পথশিশু) এক সাথে পেয়ে হৈ-হুল্লোড়, আর নাচে-গানে মেতে উঠে রায়হান। দুপুরে সবার সাথে কোরবানের ঈদের দিনের মতই গরু মাংস আর অন্যান্য আইটেম দিয়ে পেট ভরে আহার করে সে। ওই সময় তার চোখে মুখে যেন অন্য রকম আনন্দের ছাপ দেখা যায়।

রায়হানের মত পর্যটননগরী কক্সবাজার শহরের প্রায় ২০০ জন পথশিশু এই ঈদ আনন্দ আয়োজনে অংশ নেয়। এটি আয়োজন করে পথশিশুদের কল্যাণমূলক সংগঠন ‘নতুন জীবন’। আয়োজনে সঙ্গী ছিল বিভিন্ন স্কুল-কলেজে পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীদের সংগঠন ‘মেডিটেটিভ ইয়ুথ’।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের পাড়ে কবিতা চত্বরে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এই আনন্দ আয়োজনে পথশিশুদের বিনোদনের নানা ব্যবস্থা ছিল। ছেলে পথশিশুদের জন্য প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ও মেয়েদের জন্য চেয়ার খেলা। এছাড়াও সমুদ্রে গোসল, নাচ-গান আর হৈ-হুল্লোড়ে সারাদিন মেতে থাকে পথশিশুরা।

রায়হান জানায়, ‘সকাল থেকে সারাদিন আনন্দ করেছি। বেশ মজা লেগেছে। এরকম আয়োজন সব সময় হলে ভাল লাগে।’

আয়োজনকারী সংগঠন ‘নতুন জীবনের’ সভাপতি ওমর ফারুক হিরু জানান, পথশিশুদের কারও মা নেই, কারও বাবা নেই বা অনেকের মা-বাবা উভয়ই নেই। কাগজ বা প্লাস্টিক কুড়িয়ে যা আয় হয় সেগুলো দিয়ে জীবিকার সংস্থান করে তারা। এই পথশিশুরা কিন্তু আমার বা আমাদের ভাই-বোন আর শিশুদের মত ঈদ উদযাপন করতে পারে না। তাই তাদেরকেও ঈদের আনন্দ দিতে এই আয়োজন করা হয়েছে। শিশুরা খুব খুশি হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ‘এই আয়োজনে প্রায় ২০০ জন পথশিশু অংশগ্রহণ করে। আজকের দিনটা অন্তত তাদের ভাল কেটেছে। এই ধরণের আয়োজন আমরা (নতুন জীবন) প্রায় করে থাকি। এছাড়া তাদেরকে সপ্তাহে একদিন করে পড়াশোনা করানো হয়।’

শিক্ষার্থীদের সংগঠন মেডিটেটিভ ইয়ুথের সভাপতি তানভীর আহমেদ বলেন, ‘নতুন জীবন নামে ওই সংগঠন পথশিশুদের জন্য নানামুখি কাজ করে। আমরা এবার তাদের ঈদ আনন্দ আয়োজনে অংশগ্রহণ করেছি। এটা করতে পেরে আমাদেরও বেশ ভাল লেগেছে।’

নতুন জীবন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সাল থেকে কক্সবাজার শহরে অবস্থানরত সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের (পথশিশু) জন্য কাজ করে যাচ্ছে পথশিশুদের কল্যাণমূলক সংগঠন ‘নতুন জীবন’। ৯ জন সংবাদকর্মী এই সংগঠনের কার্যক্রম শুরু করলেও এখন সদস্য সংখ্যা ৩৪ জন। আর এই সংগঠনে বর্তমানে পথশিশু রয়েছে ১৯০ জন।

সভাপতি ওমর ফারুক হিরু জানান, পথশিশুদের সপ্তাহে প্রতি শুক্রবারে পৌর প্রিপ্যারেটরী উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষাদান করা হয়। এছাড়াও প্রতি ঈদে নিজেদের টাকায় নতুন জামা, বার্ষিক পিকনিক, স্বাস্থ্যসেবা, মাঝে মধ্যে ভাল খাবার পরিবেশনসহ নানা আয়োজন করা হয়। আমাদের সীমিত সুযোগ-সুবিধার মধ্যে যতটুকু সম্ভব করে যাচ্ছি। কিন্তু বৃহৎ পরিসরে তাদের (পথশিশু) জন্য কোন উদ্যোগ নিতে হলে সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা দরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ভোটের আগে সেনাবাহিনী ও বিজিবি মোতায়েন

It's only fair to share...32100অনলাইন ডেস্ক :: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দুই-তিন দিন ...