Home » কক্সবাজার » উপকূলে লবণ উৎপাদনে রেকর্ড

উপকূলে লবণ উৎপাদনে রেকর্ড

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া ::   আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি বছরও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে উদ্বৃত্ত লবণ উৎপাদন করে রেকর্ড গড়তে যাচ্ছে কক্সবাজার উপকূল এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার চাষীরা। এতে দেশের ভোক্তা ও শিল্পখাতে চাহিদা মিটিয়ে বিপুল পরিমাণ লবণ মজুদ থাকবে বলেও আশা চাষীদের। চাষীরা জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি লবণ উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছেন চাষীরা। আরো অন্তত ১৫দিনের বেশি লবণ উৎপাদন করার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প (বিসিক) সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে দেশে ভোক্তা ও শিল্পখাতে লবণের চাহিদা রয়েছে ১৬ লাখ ৬৫ হাজার মেট্টিক টন। বিপরীতে বিসিক দেশে লবণ উৎপাদন এলাকার ৬৪ হাজার ১৪৭ একর জমিতে লবণ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ১৮ লাখ মেট্টিক টন। গতবছরের নভেম্বর মাসের ১৫ তারিখ থেকে চকরিয়া, পেকুয়া, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, টেকনাফ, কক্সবাজার সদরসহ কক্সবাজার উপকূল এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালীর উপজেলায় লবণ উৎপাদনে নামে লক্ষাধিক চাষী।

চাষ শুরু করার পর থেকে সদ্য বিদায়ী মাস এপ্রিল পর্যন্ত ১৩টি লবণ উৎপাদন মোকামের অধীনে লবণ উৎপাদন হয়েছে প্রায় ১৬ লাখ মেট্রিক টন।

বিসিকের গবেষণা কর্মকর্তারা জানান, মৌসুম শেষ হবে চলতি মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে। এই সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়ে যাওয়া সম্ভাবনা রয়েছে। বর্তমানে যেভাবে আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে তা যদি বিদ্যমান থাকে। বাংলাদেশ লবণ চাষি সমিতির নেতারা জানিয়েছেন, উৎপাদন মৌসুমের শুরুতে লবণের ভাল দাম থাকলেও বর্তমানে প্রতিটি মোকামে লবণ উৎপাদন বেড়ে লবণের দাম কমিয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলছেন মাঠপর্যায়ের চাষীরা। তাদের অভিযোগ, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় লবণ উৎপাদন দিনের পর দিন বাড়ছে। কিন্তু দেশের বড় বড় মিল মালিকরা সিন্ডিকেট করে ভুল তথ্য দিয়ে এবারও বিদেশ থেকে লবণ আমদানির পাঁয়তারা শুরু করেছে। যদি ভুল তথ্য উপস্থাপন করে সিন্ডিকেটরা এবারও বিদেশ থেকে লবণ আমদানির সুযোগ পায় তাহলে বড় ধরণের ক্ষতির সম্মুখিন হবেন চাষীরা। বিসিক কক্সবাজার আঞ্চলিক কার্যালয়ের সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মনজুর আলম বলেন, ‘চলতি মে মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত লবণ উৎপাদন করা যাবে। বাকী এই সময় যদি প্রকৃতি বৈরি আচরণ না করে তাহলে লবণ উৎপাদন রেকর্ড গড়বে। তবে পুরোপুরিই তা নির্ভর করবে প্রকৃতির ওপর।’

বিসিক কক্সবাজার কার্যালয়ের সহকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইদ্রিস জানান, চলতি মৌসুমে ১৩টি কেন্দ্রের (মোকাম) অধীনে কক্সবাজার উপকূল এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালী ও আনোয়ারা উপজেলার আংশিক এলাকার ৬৪ হাজার ১৪৭ একর জমিতে লবণ চাষ করা হচ্ছে। তন্মধ্যে চকরিয়া উপজেলার দরবেশকাটা মোকামে ১১ হাজার ৯৪১ একর, ডুলাহাজারা ইউনিয়নে ২০০ একর, খুটাখালী ইউনিয়নের ফুলছড়িতে ৩ হাজার ৮৫০ একর, মহেশখালী উপজেলার লেমশিখালী মোকামে ৬ হাজার ৬১৮ একর, উত্তর নলবিলা মোকামে ৬ হাজার ৫২৮ একর, গোরকঘাটা মোকামে ৩ হাজার ৮৭৭ একর, মাতারবাড়ি মোকামে ৫ হাজার ৫৮ একর, কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডি মোকামে ১ হাজার ৮৫৩.৭৪ একর, কুতুবদিয়া উপজেলার পূর্ব বড়ঘোনা মোকামে ৫ হাজার ৭৮৮ একর, টেকনাফের মোকামে ২ হাজার ৪৬৬ একর, কুতুবদিয়ার লেমশীখালী, কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডি ও মহেশখালীর মাতারবাড়ীতে স্থাপিত লবণ প্রর্দশনী কেন্দ্রে ৯৪.২৬ একর, সদর উপজেলার গোমাতলীর ৩ হাজার ৩০৮ একর, বাঁশখালী উপজেলার সরল ঘোনার প্রদর্শনী কেন্দ্রে ৩৮৮ একর জমিতে লবন উৎপাদন চলছে। তিনি আরো জানান, চলতি লবণ উৎপাদন মৌসুমের শুরু থেকে এপ্রিল মাস পর্যন্ত ১৬ লাখ মেট্রিক টন লবণ উৎপাদন সম্ভব হয়েছে। বাকী যে সময় হাতে রয়েছে, সেইসময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে উদ্বৃত্ত লবণ উৎপাদন হবে বলে আশা করছি আমরা।’

বাংলাদেশ লবণ চাষী সমিতির নেতা হারুণুর রশিদ বলেন, ‘মৌসুমের শুরু থেকেই লবণ উৎপাদন ভাল হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চাষীরা লবণ উৎপাদনে দিনরাত পরিশ্রম করে চলেছেন। বিসিকের জরিপে লবণ উৎপাদনের চিত্র কম দেখানো হলেও মাঠপর্যায়ের হিসেব মতে ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। বাকী যে সময়টুকু এখনো রয়েছে সেইসময় লবণ উৎপাদন ভালভাবে করা গেলে তা উদ্বৃত্তই থাকবে।’

চকরিয়ার বৃহত্তম লবণ চাষী শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে দেশের লবণ শিল্পের সাথে জড়িয়ে আছেন অন্তত ৬ লাখ মানুষ। প্রতিবছর তারা দেশে লবণ উৎপাদনে রেকর্ড সৃষ্টি করলেও কতিপয় মহল সরকারের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ে ভুল তথ্য উপস্থাপন করে বিদেশ থেকে লবণ আমদানির চেষ্টা শুরু করে দিয়েছেন বলে আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে। যদি এ ধরণের কোন পায়তারা করা হয় তাহলে প্রান্তিক চাষীরা আর্থিকভাবে মার খাবে। লবণ চাষীরা বিদেশ থেকে লবণ আমদানির সুযোগ দেওয়া থেকে বিরত থাকতে সরকার ও সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ক্রেস্টের নামে বাংলাদেশিদের জমজমাট বাণিজ্য

It's only fair to share...21500॥ শাহাব উদ্দিন সাগর ॥  নিউইয়র্কে বাংলাদেশিদের অনুষ্ঠানগুলোতে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সম্মানিত করতে ক্রেস্ট প্রদানের একটি রীতি দীর্ঘ দিন ধরে চালু রয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য কমিউনিটির খ্যাতিমানদের সম্মানিত করার এই রেওয়াজ সর্বমহলে প্রশংসিতছিল এবং এই উদ্যোগ একটি প্রেরণা হিসাবে বিবেচিত হত। কিন্তু এখন এই সব ক্রেস্ট কতটা সম্মানের কিংবা আদৌ সম্মানজনক কিনা তা নিয়ে কমিউনিটির বিদগ্ধমহল প্রশ্ন তুলেছেন। তারা বলছেন, ক্রেস্ট প্রদানের এই প্রশংসিত প্রক্রিয়াকে‘অমর্যাদাকর’ পর্যায়ে নামিয়ে ফেলেছেন কিছু সুযোগ সন্ধানী ব্যক্তি। যাদেরকে তারা অভিহিত করেছেন ‘ধান্দাবাজ’ হিসাবে। এই ব্যক্তিরা ক্রেস্ট প্রদান নিয়ে এক ধরনের বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন বলে তাদের অভিযোগ। তারা আরো বলেছেন, প্রবাসীদের সম্মানিত করার নামে এখন চলছে জমজমাট ‘ক্রেস্ট বাণিজ্য’। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজকরা ক্রেস্ট দেয়ার নামে সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে অনুসন্ধানকালে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, এই সব আয়োজকরা অর্থের বিনিময়ে কমিউনিটির যে কোনমানুষের হাতে ক্রেস্ট তুলে দিচ্ছেন। আবার ক্রেস্টগুলো দিতে গিয়ে বাজারের মূলা-বেগুনের মত দাম-দর হাঁকানো হচ্ছে। দাম-দরে বনিবনা হওয়ার পরই অনুষ্ঠানের মঞ্চে ডেকে এই সব ব্যক্তিদের হাতে ক্রেস্ট হস্তান্তর করা এখন তারা নিয়মেপরিণত করেছেন। বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে সাম্প্রতিক সময়ে এমন কিছু অনুষ্ঠান হয়েছে যেখানে দর্শকদের চেয়ে ক্রেস্ট গ্রহীতার সংখ্যাই ছিল বেশি। কমিউনিটির সচেতন ব্যক্তিরা বলছেন, ‘ইনডোর’ থেকে শুরু করে ‘আউটডোর’ সব ধরনেরপ্রোগ্রামেই এই ক্রেস্ট বাণিজ্য চলছে। ফলে অধিকাংশ ক্রেস্ট গ্রহীতার অবদান এবং কর্মকান্ড নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠছে। তারা অনুষ্ঠান থেকে ক্রেস্ট হাতে বের হয়ে আসার পর লোকজনকে প্রকাশ্যে তাদের সম্পর্কে নানা বিরূপ মন্তব্য করতে শোনাযাচ্ছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সম্মানীয় ব্যক্তিরা যদি এভাবে ক্রেস্ট নিতে অনিহা প্রকাশ করেন তবে আয়োজকরা এ ধরনের হীন কাজ থেকে বিরত থাকতে বাধ্য হবেন। পাশাপাশি আত্মপরিচয়হীনতায় ভুগতে থাকা ক্রেস্টলোভীরা লজ্জায় পড়তেপারেন। সামার এলেই নিউইয়র্কে অনুষ্ঠানের হিড়িক পড়ে যায়। শুক্রবার এবং শনিবার সামাজিক অনুষ্ঠানে ব্যস্ত থাকে কমিউনিটি। সংগঠনের পাশাপাশি ব্যক্তি পর্যায়েও অনেক অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে থাকে। কমিউনিটির বিশিষ্টজনরা বলছেন, গত দুই বছর ধরে বাংলাদেশি অনুষ্ঠানগুলোতে গণহারে ক্রেস্ট দেয়ার প্রবণতা শুরু হয়েছে। এক পর্যায়ে এসে সেটি পরিণত হয় প্রতিযোগিতায়। মেলা, কনভেনশন বা কোন বিখ্যাত ব্যক্তির নামে এককঅনুষ্ঠান করেও ক্রেস্ট প্রদানের দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হচ্ছে। কোন কোন অনুষ্ঠানে এক-দুজন খ্যাতিমান ব্যক্তিকে যথার্থভাবেই ক্রেস্ট দেয়া হলেও তাকে সামনে রেখে ডজন ডজন অজ্ঞাতকূলশীলকে ক্রেস্ট দেয়া হচ্ছে অর্থের বিনিময়ে। এ সব এখনবাংলাদেশি অধ্যুাষিত এলাকাগুলোতে ‘ওপেন সিক্রেট’। গণহারে ক্রেস্ট দেয়াকে সমর্থন করেন না এমন কয়েকজন সাপ্তাহিক আজকালকে বলেন, বাজারে মূলা- বেগুনের মত দাম হাঁকিয়ে ক্রেস্ট দেয়া হচ্ছে অনেকের হাতে। যিনি যত অর্থ দিচ্ছেন তিনি তত বড় আকারের ক্রেস্ট পাচ্ছেন এই সবআয়োজকদের কাছ থেকে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নিউইয়র্কে এমনও অনেক ব্যক্তি আছেন যাদের বাসা ও অফিসের দেয়াল ভরে গেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে পাওয়া ক্রেস্টে। ক্রেস্টগুলো দেয়ার সময় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের নামের আগে আবার জুড়ে দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন পদপদবী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি অনুষ্ঠানে ক্রেস্ট পাওয়া বাংলাদেশিদের মধ্যে নানা অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিও রয়েছেন। বিভিন্ন অপরাধে গ্রেফতার হওয়ার পর তারা এখন ক্রেস্ট হাতে সমাজে বুক ফুলিয়ে বেড়াচ্ছেন। ...