ঢাকা,মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

ছাগলকে কি জরিমানা করতে পারেন ইউএনও?

অনলাইন ডেস্ক ::
মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯-এর ৭-এর ১ ধারায় বলা আছে, মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে অপরাধ আমলে নেয়ার পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তার বিরুদ্ধে অভিযোগ লিখিত পড়ে শোনাবেন ও ব্যাখ্যা করবেন। পাশাপাশি জানতে চাইবেন তিনি অপরাধ স্বীকার করেন কি না। ৭-এর ২ ধারা অনুযায়ী যদি তিনি অপরাধ স্বীকার করেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে দণ্ড আরোপ করে আদেশ দেবেন।

ফুলগাছ খাওয়ায় ছাগলকে ইউএনওর জরিমানার আদেশের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আইন বিশেষজ্ঞরা।

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সীমা শারমিন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে গণ-উপদ্রব আইনে চতুষ্পদ প্রাণীটিকে জরিমানা করেছেন গত ১৭ মে।

৯ দিন পর বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় হয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে। আর বৃহস্পতিবার ইউএনও নিজে সেই জরিমানা পরিশোধ করেন।

তবে বিষয়টি এখানেই শেষ হয়ে গেছে এমন নয়। প্রশ্ন উঠেছে, ইউএনও তার ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন কি না।

প্রাণীকে কখনও জরিমানা করা হয়েছে, দেশে এমন কথা কখনও শোনা যায় না। আর যদি অনুপস্থিতিতে তার মালিককে জরিমানা করা হয়, তাহলেও সেখানে আইন লঙ্ঘন হয়েছে।

কারণ ভ্রাম্যমাণ আদালতে কাউকে সাজা দিতে হলে ঘটনাস্থলে তাকে উপস্থিত থাকতে হয়। আর তাকে অবশ্যই অভিযোগ স্বীকার করে নিতে হয়।

সাজায় আইন লঙ্ঘন যে কারণে

ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে কীভাবে তা পরিচালনা করতে হবে, সেটি আইন দ্বারা সুনির্দিষ্টভাবে সংজ্ঞায়িত। আর সেটি বিবেচনায় নিলে ইউএনওর সাজা দেয়া বৈধ হয়নি।

মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯-এর ৭-এর ১ ধারায় বলা আছে, মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সময় কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে অপরাধ আমলে নেয়ার পর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তার বিরুদ্ধে অভিযোগ লিখিত পড়ে শোনাবেন ও ব্যাখ্যা করবেন। পাশাপাশি জানতে চাইবেন তিনি অপরাধ স্বীকার করেন কি না।

৭-এর ২ ধারা অনুযায়ী যদি তিনি অপরাধ স্বীকার করেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে দণ্ড আরোপ করে আদেশ দেবেন।

৭-এর ৩ ধারায় বলা হয়েছে, যদি সেই ব্যক্তি আত্মপক্ষ সমর্থনে ব্যাখ্যা দেন এবং সেটি সন্তোষজনক হয়, তাহলে ম্যাজিস্ট্রেট তাকে অব্যাহতি দেবেন।

আর যদি সেই ব্যাখ্যা সন্তোষজনক মনে না হয়, তাহলে ম্যাজিস্ট্রেট অভিযোগটি উপযুক্ত এখতিয়ারসম্পন্ন আদালতে পাঠাবেন।

আবার আইনের ৯-এর ১ ধারায় বলা হয়েছে, জরিমানা করা হলে সেটি তাৎক্ষণিক আদায় করা হবে।

তাৎক্ষণিক জরিমানা আদায় করা না গেলে কারাদণ্ড তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হবে।

ঘটনা শুনে বিচারপতির অট্টহাসি

ইউএনওর এই আদেশে সম্পর্কে জেনে সুপ্রিম কোর্টের সাবেক একজন প্রধান বিচারপতি অট্টহাসি হেসেছেন। পরে রসিকতা করে হাসতে হাসতে বলেন, ‘এ ধরনের গল্প মাঝে মাঝে শুনিয়েন।’

পরে তিনি বলেন, ‘ছাগল বা কোনো প্রাণীকে জরিমানা করা যায় না। তবে এগুলো আটকে রাখা যায়, মালিক এসে জরিমানা দিয়ে তা ছাড়িয়ে নেবে। যেটা হলো খোঁয়াড়ের বিধান।

‘কোনো প্রাণী যদি কারো ক্ষতি করে, সে ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি প্রাণীটিকে খোঁয়াড়ে দেবে, মালিক সেটার জরিমানা দিয়ে নিয়ে যাবে। কিন্তু ছাগল বা প্রাণীকে দণ্ড দেয়ার কোনো বিধান নাই।’

‘এটা ক্ষমতার অপব্যবহার’

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মসজিল মোরসেদ বলেন, ‘এই আদেশ আইন দ্বারা স্বীকৃত নয়। কোনো প্রাণীকে দণ্ড দেয়ার বিধান নেই। ছাগলকে জরিমানা করা আইনের ভুল প্রয়োগ করা হয়েছে।’

সেই ইউএনওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলেও মনে করেন এই আইনজীবী। বলেন, ‘ছাগলকে জরিমানা করে তারা মূলত নিজেদের ক্ষমতা দেখিয়েছেন। এ ধরনের লোকদের ওইখান থেকে বদলি করে ভিন্ন সেক্টরে দেয়া উচিত।’

ইউএনও কী বলছেন

সেদিনের ঘটনার বিষয়ে ইউএনও সীমা শারমিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উপজেলা চত্বরে একটি পার্ক করা হয়েছে। সেখানে বিভিন্ন রকমের ফুলের গাছ লাগানো হয়েছে। তেমন বেড়া দেয়া নেই। এখানে ওই ছাগল প্রায়ই এসে গাছ ও ফুলগুলো খেয়ে ফেলে। এ বিষয়ে ওই ছাগলের মালিককে একাধিকবার মৌখিকভাবে বলাও হয়েছে।

‘কিন্তু ওই নারী আমাদের আমলে নেননি। এরপর ঘটনার দিন ওই ছাগল আবার ফুল ও গাছ খেয়েছে। সেদিন ছাগল আটক করে মালিককে ডাকা হয়। এরপর ছাগলের জরিমানা করা হয়। গণ-উপদ্রব আইনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

ছাগলকে কি জরিমানা করতে পারেন ইউএনও?
বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সীমা শারমিন
এই আদেশ বৈধ হয়েছে কি না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘তাকে (ছাগলের মালিক) সংশোধনের জন্য জরিমানা করেছিলাম। শাস্তি দেয়ার জন্য নয়। অথচ এই বিষয়টি এখন অনেক বড় হয়ে গেছে। পরে মানবিক কারণে ওই ছাগলের জরিমানা আমি নিজেই দিয়েছিলাম। এরপর ছাগল বৃহস্পতিবার তাকে ফেরত দেয়া হয়।’

জেলা প্রশাসক যা বললেন

ছাগলকাণ্ডে ইউএনও ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন কি না, জানতে চাইলে বগুড়ার জেলা প্রশাসক (ডিসি) জিয়াউল হক বলেন, ‘এ বিষয়ে আপনারাও অনেক কিছু জানেন। আমারাও বিভিন্নভাবে শুনেছি। খোঁজ নিয়েছি। এরপর আমরা আমাদের কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। সেখান থেকে যেভাবে নির্দেশনা দেয়া হবে, সেভাবেই আমরা পদক্ষেপ নেব।’

কী আছে গণ-উপদ্রব আইনে?

ইউএনও যে গণ-উপদ্রব আইনে ছাগলকে জরিমানা করেছেন, সেটি দণ্ডবিধির নানা বিধিতে বলা আছে।

দণ্ডবিধি অনুযায়ী, যেকোনো ব্যক্তি তার অবৈধ কাজ যা জনসাধারণের উপদ্রব সৃষ্টির জন্য দায়ী, যা জনসাধারণের বিরক্তি উৎপাদন করে, তা শাস্তিযোগ্য।

২৬৮ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি কর্তৃক জনসমক্ষে এমন কোনো কাজ করা, যার দ্বারা জনগণের বিরক্তি সৃষ্টি হয় এমন কার্য করাকে গণ-উৎপাত বলে।’

২৯০ ধারায় এর শাস্তি সম্পর্কে ২০০ টাকা পর্যন্ত জরিমানা করার কথা বলা হয়েছে।

ঘরকে জুয়াড়িদের আড্ডায় পরিণত করা, রাস্তার অংশবিশেষে ঘর বানানো, রাস্তায় পশু জবাই বা জনসাধারণের ব্যবহার্য স্থানে মূত্র ত্যাগের মতো কাজ করলে ৬ মাসের কারাদণ্ড বা জরিমানা করা যায়।

২৯৪ ধারা অনুযায়ী প্রকাশ্য স্থানে অশ্লীল কাজ বা গান গাইলে তিন মাসের কারাদণ্ড বা জরিমানা করা যায়।

৫০৯ ধারা অনুযায়ী নারীকে উদ্দেশ করে অশালীন মন্তব্য বা অঙ্গভঙ্গি করলে বা সেই নারীর নির্জনবাসে অনধিকার প্রবেশ করলে এক বছরের কারাদণ্ড বা জরিমানা বা উভয় দণ্ড হতে পারে।

এ রকম আরও নানা বিষয় আছে, যেখানে কেউ উপদ্রব করলে শাস্তি হতে পারে।

ইউএনও বলছেন, তিনি ছাগলমালিককে একাধিকবার সাবধান করেছেন, কিন্তু তিনি ব্যবস্থা নেননি। তাই তিনি জরিমানা করেছেন।

যা ঘটেছিল

গত ১৭ মে উপজেলা পরিষদের ফুলগাছ খেয়ে ফেলেছিল সাহারা বেগম নামে একজনের ছাগল। এ জন্য প্রাণীটিকে আটক করে ইউএনও সীমা শারমিন জরিমানা করেন দুই হাজার টাকা।

ছাগলের মালিক তখন ঘটনাস্থলে ছিলেন না। পশুর পক্ষে তো জরিমানা দেয়া সম্ভব নয়। তাই মালিককে চাপ দিতে আটক করা হয় সেই ছাগল।

সীমা শারমিন জানান, উপজেলা চত্বরে একটি পার্ক করা হয়েছে। সেখানে বিভিন্ন জায়গা থেকে ফুলের গাছ নিয়ে এসে লাগানো হয়েছে। কিন্তু এখানে ওই ছাগল এসে গাছের ফুলগুলো খেয়ে নিয়েছে কয়েকবার। এ বিষয়ে ছাগলের মালিককে সতর্ক করা হয়েছে। কিন্তু তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। এ কারণে গণ-উপদ্রব আইনে ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ছাগল মালিক যা বলছেন

সাহারা আদমদীঘি উপজেলা পরিষদ চত্বরের ডাকবাংলোসংলগ্ন এলাকায় বসবাস করেন। তার স্বামীর নাম জিল্লুর রহমান।

ছাগলটি হারিয়ে জিল্লুর অনেক জায়গায় সন্ধান করেন। পরে এলাকার লোকজন তাকে জানান, ছাগলটি ইউএনওর এক নিরাপত্তাকর্মীর কাছে রয়েছে।

তিনি ইউএনওর বাসার পাশে গিয়ে এক নিরাপত্তাকর্মীকে ছাগলকে ঘাস খাওয়াতে দেখেন। এ সময় ছাগল ফেরত চাইলে দেয়া যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন ওই নিরাপত্তাকর্মী।

পরে তিনি ইউএনওর কাছে গেলে তিনি তাকে বলেন, ফুলগাছের পাতা খাওয়ার অপরাধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানার টাকা দিয়ে যেন তিনি ছাগল নিয়ে যান।

কিন্তু ছাগল ফুলগাছ খাবে- এ জন্য দুই হাজার টাকা দিতে হবে, এটা মানতেই পারেননি সাহারা বেগম। টাকা দিচ্ছিলেন না তিনি।

এর মধ্যে ইউএনওর গৃহকর্মী হঠাৎ তাকে ডাকেন টাকা নিয়ে আসতে। তখন আক্কেলগুড়ুম দশা সাহারা বেগমের। কেন তাকে টাকা দেবেন?

সেই গৃহকর্মীর কাছেও তিনি রাখেন প্রশ্ন।

পরে তাকে জানানো হয়, ২২ মে তার ছাগলটি পাঁচ হাজার টাকায় বেচে দেয়া হয়েছে। এ থেকে জরিমানা বাবদ দুই হাজার টাকা কেটে রাখা হয়েছে। বাকি টাকা যেন নিয়ে আসেন।

তবে সাহারা বেগম সেই টাকা আর নেননি।

যদিও ইউএনও পরে জানিয়েছেন, তিনি ছাগল বিক্রি করেননি। অন্য একজনের জিম্মায় রেখেছিলেন।

সমালোচনার পর জরিমানা পরিশোধ ইউএনওর

গত বুধবার বিষয়টি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করার পরদিন ইউএনও নিজে সেই জরিমানার অর্থ পরিশোধ করে সাহারা বেগমের হাতে তার ছাগল তুলে দেন।

পাঠকের মতামত: