ঢাকা,বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০

পেকুয়ায় ইটভাটায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ৫০হাজার টাকা জরিমানা

পেকুয়া প্রতিনিধি :: কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউপির সোনাইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মহসিনের মালিকানাধীন এসটিএম ব্রিক নামে একটি ইটভাটায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর। পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মোহাম্মদ মোয়াজ্জম হোসাইন এসটিএম ব্রিকে ছাড়পত্র নবায়ন না থাকায় গত ২৫ আগস্ট এ জরিমানা করেন।

জানা গেছে, উপজেলার বারবাকিয়ায় এসটিএম ব্রিক নামে একটি ইটভাটা দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে পরিচালনা করে যাচ্ছে সোনাইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ মহসিনসহ আরো বেশ কয়েকজনের একদল সিন্ডিকেট। সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ৫ কিলোমিটারের ভিতর প্রধান শিক্ষক মহসিন এ অবৈধ ইটভাটাটি গড়ে তুললেও অদৃশ্য কারণে বনবিভাগও নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। তবে বনবিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা গফুর মোল্লা বলেন, এসটিএম ইটভাটাটি সংরক্ষিত বনের ভিতরে অবৈধভাবে গড়ে ওঠেছে। সাবেক ইউএনও স্যারকে আমি এ বিষয়ে অবগত করেছিলাম। বনবিভাগ কেন এ বিষয়ে নিরব জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেহেতু ইটভাটাগুলো দেখভাল করেন মাননীয় ডিসি মহোদয় ও ইউএনও। সেক্ষেত্রে আমাদের করার কিছুই নাই।

আরো জানা গেছে, মোঃ মহসিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সরকারি শতভাগ বেতনভুক্ত কর্মচারী। সংরক্ষিত বন ও গণবসতিপূর্ণ এরিয়ায় তিঁনি অবৈধভাবে এসটিএম ব্রিকটি গড়ে তুলেছেন। যিনি শিক্ষার কারিগর তিনি পরিবেশ বিধ্বংসী ও ছাড়পত্র বিহীন ইটভাটা করতে পারেন কিনা প্রশ্ন সচেতন মহলের।

এ ক্ষেত্রে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সালামত উল্লাহ খান বলেন, শিক্ষক হলেও স্কুল সময়ের পর তিনি অবশ্যই ব্যবসা করতে পারবেন। তবে তিনি যেহেতু শিক্ষক তাই পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন ব্যবসা না করায় ভাল।

গত ২৫ আগস্ট পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মোহাম্মদ মোয়াজ্জম হোসাইন স্বাক্ষরিত এক পত্রে জানা যায়, পরিবেশগত ছাড়পত্র না থাকায় পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধন করায় বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন-১৯৯৫ এর ধারা ৭ এর আলোকে পেকুয়ার এসটিএম ব্রিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হল।

এবিষয়ে জানতে চাইলে এসটিএম ব্রিকের মালিক শিক্ষক মহসিন জানান, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের জন্য ব্যবসা করতে মানা নাই। অনেকজনে ইটভাটা করেছে তাই আমিও করেছি।

জরিমানা কেন করা হল জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত ২৫ আগস্ট বেশ কয়েকটি ইটভাটার বিষয়ে শুনানি ছিল। সেখানে তাদের ইটভাটার ছাড়পত্রটি নবায়ন ছিলনা বিধায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। শিক্ষক হয়ে তিনি কেন বনবিভাগের আওতাভুক্ত জায়গায় অবৈধ ব্যবসায় লিপ্ত রয়েছেন তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বনবিভাগ কখনো তাদের এবিষয়ে অবগত করেনি।

পাঠকের মতামত: