ঢাকা,বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

সরকারী অফিস ফাঁকি দিয়ে ব্যাক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দরবেশকাটার বিসিক কর্মকর্তা

শিল্প মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) চকরিয়া উপজেলার দরবেশকাটা লবন কেন্দ্রের ইনচার্জ মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে অফিস চলাকালীন সময়ে ব্যাক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালানোর অভিযোগ । মনিরুজ্জামানের বিরুদ্ধে অফিস চলাকালীন সময়ে অফিস বন্ধ রেখে চকরিয়া উপজেলার বদরখালী বাজারে জান্নাত হোমিও নামের ব্যাক্তিগত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চেম্বার করাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সরেজমিনে দেখা যায়, দরবেশকাটা লবন কেন্দ্র অফিসের পার্শ্ববর্তী একজন লোক বলেন, অফিসটি কে চালায়,কাজ কি তা জানি না,কোনোদিন খোলতে দেখি নাই,কর্মকর্তাদেরও চিনি না।

লবণনীতি অনুযায়ী শিল্প মন্ত্রণালয়ের দিকনির্দেশনায় বিসিক লবণ শিল্পের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে দায়িত্ব পালন আসছে। কক্সবাজারের চকরিয়ায় অবস্থিত বিসিকের লবণ শিল্পের উন্নয়ন কর্মসূচি কার্যালয়ের আওতাধীন লবণ কেন্দ্রের মাধ্যমে উপজেলার জেলার বিভিন্ন লবণ চাষে সার্বিক সহায়তা প্রদান,ঋণ সহায়তা ও চাষি সচেতনতা তৈরি এবং নিয়মিতভাবে লবণ উৎপাদন ও মজুদ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ করে থাকে।

লবন শিল্পের কর্মকর্তা ইদ্রিস আলীর কাছে অফিস বন্ধ রাখার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি অবগত নয় বলে জানান, এবং আরো উপরস্থ কর্মকর্তার কাছে যোগাযোগ করতে বলেন।
চকরিয়া লবণ চাষী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট এইচএম শহিদ উল্লাহ চৌধুরী বলেন, দরবেশকাটার লবন কেন্দ্র অফিসের কর্মকর্তার কাজ দেখি শুধু দৈনিক লবন উৎপাদনের পরিসংখ্যান নেয়া,তাছাড়া তেমন কাজ দেখা যায় না।
অভিযুক্ত দরবেশকাটা বিসিক(লবন কেন্দ্র) ইনচার্জ মনিরুজ্জামানের কাছে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে এই প্রতিবেদককে বেশি ভাড়াবাড়ি করিও না বলে হুমকি দেন।

লবন শিল্প উন্নয়নের উপ-মহাব্যবস্থাপক জাফর ইকবাল ভূইয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একজন সরকারি কর্মচারীর ব্যাক্তিগত চেম্বার করার সুযোগ নাই। তার সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পাঠকের মতামত: