ঢাকা,বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

চকরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে সাঈদী

আসন্ন ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় আগামী ২১শে মে মঙ্গলবার চকরিয়াতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কাকে ভোট দিলে পবিত্র আমানতের খেয়ানত হবে না তা নিয়ে ভোটাররা ইতিমধ্যে চুল চেরা বিশ্লেষণ শুরু করেছেন। সরেজমিন ঘুরে ঘুরে দেখা যায়, বর্তমান চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী গত পাঁচ বছর সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করে জনগণের আস্থা অর্জন করেছে মনে করছেন ভোটাররা। বিশেষ করে তরুণ-শিক্ষিত ভোটারদের মন জয় করতে সক্ষম হয়েছে। সাঈদী বলেন, আমি ইতিমধ্যে অধিকাংশ এলাকায় গণসংযোগ শেষ করেছি, ভোটারদেরও ব্যাপক ছাড়া পাচ্ছি । বিগত সময়ের অবশিষ্ট উন্নয়ন করার সুযোগ দিবেন জনগণ। আমার বিরুদ্ধে কোনো অনিয়ম-দুর্নীতি ও জনগণকে নির্যাতনের অভিযোগ নাই। তাই বিপুল ভোটের মাধ্যমে আমাকে টানা দ্বিতীয়বার উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী করবেন জনগণ।

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে নতুন ভোটারদের উৎসাহ উদ্দীপনার যেন শেষ নেই। নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে এমন প্রত্যাশা শিক্ষা ও ঐতিহ্যের চকরিয়া উপজেলার নতুন প্রজন্মের ভোটারদের। তাদের ভোটে নির্বাচিতরা  উন্নয়ন আর মানুষের ভাগ্য বদলে দিবে এমনটি মনে করে তারা। প্রার্থীদের বয়স এবং যোগ্যতা নিয়েও নতুন ভোটারদের নিজস্ব মতামত রয়েছে।

বিশিষ্টজনদের মতামত, বিএনপি-জামায়াতের একাংশের ভোট সাঈদীর জন্য রিজার্ভ আছে। গত উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীকে বিপুল ভোটের ব্যবধান পরাজিত করেছিলেন।
চা দোকান থেকে মুদির দোকান পর্যন্ত এখন সর্বত্র দোয়াত কলম মার্কা তথা ফজলুল করিম সাঈদীর আলোচনা। ভোটের শেষ লড়াইয়ে বিজয়ের হাসি সাঈদীর মুখে আসবে বলে মনে করেন স্থানীয় ভোটারগণ।

পাঠকের মতামত: