ঢাকা,বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

পেকুয়ায় চেয়ারম্যান পদে চমক দেখাতে পারে নারী প্রার্থী রুমানা আক্তার, গণসংযোগে গণজোয়ার

প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর চেয়ারম্যান পদে পাঁচ প্রার্থী, ভাইস-চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে পাঁচ প্রার্থী ও ভাইস-চেয়ারম্যান (মহিলা) পদে তিন প্রার্থী ইতোমধ্যে প্রতিটি পাড়া মহল্লায় নিজ নিজ প্রতীকের পক্ষে ভোট প্রার্থনা শুরু করেছেন প্রার্থীরা।
পাঁচ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে এক মাত্র নারী চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমের সহধর্মিণী রুমানা আক্তার আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে বেশ জোরেশোরে। মামলা জটিলতায় বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম এখন পর্যন্ত প্রার্থীতা ফেরত না পেলেও তার সহধর্মিণী রুমানা আক্তারের গণসংযোগে গণজোয়ার সৃষ্টি হওয়ায় আগামী ২১ মে চমক দেখাতে পারেন এমন অভিমত প্রকাশ করছেন অধিকাংশ ভোটার।
রুমানা আক্তারের নির্বাচনী প্রচার সেলের সদস্য শাহাদাত হোছাইন জানান, জাহাঙ্গীর আলম তার প্রার্থীতা ফেরত পাওয়ার মিশনে রয়েছে। বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তার স্ত্রী রুমানা আক্তার আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে জোরেশোরে প্রচারণায় রয়েছেন। আমরা যেই দিকে যাচ্ছি সাধারণ জনগণ থেকে শুরু করে বিভিন্নদলের রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আরো চার চেয়ারম্যান প্রার্থীর সাথে পাল্লা দিয়ে প্রতিটি পাড়া মহল্লায় ভোট প্রার্থনা করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে মহিলা ভোটারগণের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন আনারস প্রতীকের এ চেয়ারম্যান প্রার্থী।
আমরা যখন ভোটারদের সাথে কৌশল বিনিময় করি, তখন তাদের একটি কথা কোন কারণে জাহাঙ্গীর আলম তার প্রার্থীতা ফেরত না পেলে রুমানা আক্তারকেই বিপুল ভোটে জয়লাভ করতে মাঠে রয়েছে অধিকাংশ ভোটার।
তিনি আরো বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বারবার ষড়যন্ত্রের শিকার হওয়ায় সাধারণ জনগণের কাছে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এছাড়াও বিগত ৫ বছর চেয়ারম্যান থাকাকালে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিয়েছে একটি মহল। এমনকি একটি অস্ত্র মামলায় বিচার শেষ করে সাজা প্রদান করা হয়। যার কারণে ওই মামলার রেফান্সে দিয়ে বর্তমান মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। তিনি আদালতের ধারস্ত হয়েছেন। ইনশাল্লাহ বিজ্ঞ আদালতে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা হবে।
উপজেলা চেয়ারম্যানের ভাই ক্রীড়া ব্যক্তি মোঃ আজমগীর বলেন, আমাদের বড় ভাই বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমসহ পাঁচ ভাইকে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানো হয়েছিল। বড় ভাইয়ের চেয়ারম্যান পদটি কেড়ে নিতে চেয়েছিল তারা । মহান আল্লাহ সহায় ছিল বলে চক্রান্তকারীরা সফল হয়নি। বর্তমানেও সেই চক্রান্ত অব্যাহত রেখেছে। ইনশাল্লাহ দ্রুত আমরা প্রার্থীতা ফিরে পাবো। যদি কোন কারণে অসুবিধা হয় তাহলে আনারস প্রতীক নিয়ে ভাবিকে জিতিয়ে আনতে সর্বোচ্ছ চেষ্টা থাকবে। ইতোমধ্যে পেকুয়াবাসী ভাবির গণসংযোগে ব্যাপক সাড়া দিচ্ছে। ২১ তারিখ ইনশাল্লাহ প্রমাণ হবে।
চেয়ারম্যান প্রার্থী রুমানা আক্তার জানিয়েছেন, স্বামীর অবর্তমানে সাধারণ জনগণ যেইভাবে গণসংযোগে সাড়া দিচ্ছে তার প্রতিদান দেওয়া কিছুতেই সম্ভব নয়। ইনশাল্লাহ পেকুয়ার মানুষ বিপ্লব ঘটাতে প্রস্তুত রয়েছে। স্বামী জাহাঙ্গীর আলমের জন্য দোয়া কামনা করছি।

পাঠকের মতামত: