ঢাকা,মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

রামুতে মুরগী লালন পালনের জন্য ৩৯ জন প্রান্তিক নারী পেলো পরিবেশ বান্ধব শেড

সোয়েব সাঈদ, রামু ::
কক্সবাজারের রামুতে সুবিধা বঞ্চিত ও প্রান্তিক জনপদের নারীরা সরকারি অনুদানে পেয়েছেন মুরগী লালন-পালনের পরিবেশবান্ধব শেড। দেয়া হয়েছে পর্যাপ্ত উপকরণ ও প্রশিক্ষণ। বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে মুরগী লালন পালন করে অর্থনৈতিকভাবে স্বাভলম্বী হওয়ার স্বপ্œ দেখছেন প্রান্তিক পর্যায়ের এসব নারীরা।
রামু উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল এর তত্ত¡াবধানে প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের বিনিয়োগ সহায়তার আওতায় এসব শেড প্রদান করা করা হয়েছে। উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের বাহারকাচা নামক এলাকায় দেশি মুরগি পিজি এর স্কাভেজিং পোল্ট্রির পরিবেশ বান্ধব শেড পেয়ে আনন্দে আত্মহারা ৩৯ জন নারী সদস্য।
কক্সবাজার জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. সাহাব উদ্দীন জানান- দেশের প্রয়োজনীয় খাদ্য ও পুষ্টির যোগান দিতে এ উদ্যোগ অবদান রাখবে। গ্রামীন পর্যায়ে এ উদ্যোগ সফলভাবে বাস্তবায়নে প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলের নজরদারি ও আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।
রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমিদা মুস্তফা বলেন- রামু উপজেলার সুবিধা বঞ্চিত ও প্রান্তিক পর্যায়ের নারীদের বিনামূল্যে মুরগী লালনপালনের জন্য পরিবেশবান্ধব শেড নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। এরপাশি তাদের প্রশিক্ষণও দেয়া হয়েছে, যাতে তারা বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে মুরগী লালনপালন করতে পারে। প্রান্তিক পর্যায়ে এভাবে মুরগী লালনপালনের উদ্যোগ সফলভাবে বাস্তবায়ন হলে দেশে প্রোটিনের ঘাটতি পূরণ সম্ভব হবে।
তিনি আরও বলেন- গ্রামীন নারীরা যথাযথ সুযোগ ও প্রশিক্ষণের অভাবে অলস সময় পার করে, বিশেষ করে কোন আয়বর্ধক কাজে অনেক সম্পৃক্ত হয়না। এমন নারীরাই এ চমৎকার কর্মকান্ডের মাধ্যমে পরিবার ও সমাজে অর্থনৈতিকভাবে ভুমিকা রাখবে। পুরো উপজেলায় এ প্রকল্প সফলভাবে বাস্তবায়ন করা হবে।
রামু উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. অসীম বরন সেন বলেন, রামুর রাজারকুল ইউনিয়নের বাহারকাচা গ্রামে দেশী মুরগী লালনপালনকারি দল রয়েছে। এদের সবাইকে দেশী মুরগী লালন পালনের জন্য পরিবেশবান্ধব ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। এরফলে তারা আয়বর্ধক কাজে সম্পৃক্ত হওয়ার পাশাপাশি মাংস ও ডিম উৎপাদন করে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন অবদান রাখতে সক্ষম হবে।
মুরগীর শেড পাওয়া হামিদা আকতার জানান- এ প্রকল্পের মাধ্যমে এ গ্রামের ৩৯ জন নারী এখন স্বাভলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। কেবলমাত্র শেড নয়, এ প্রকল্পের মাধ্যমে তাদের মুরগী লালন পালনের জন্য প্রয়োজনী সকল সহযোগিতা ও প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।
মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর বিকালে নতুন নির্মিত এসব শেড পরিদর্শনে যান, কক্সবাজার জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. সাহাব উদ্দীন ও রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমিদা মুস্তফা। পরিদর্শনকালে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. অসীম বরন সেন প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের বিভিন্ন কার্যক্রম এবং খামারীদের প্রদানকৃত প্রশিক্ষণ সম্পর্কে আলোচনা করেন।
এসময় রামু প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সোয়েব সাঈদ, উপজেলা প্রাণীসম্পদ কার্যালয়ের প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডা. আজিজা আক্তার ঝিনুক, প্রাণিসম্পদ মাঠ সহকারি দীন বন্ধু, রাজারকুল ইউনিয়ন এলএসপি রেখা বড়–য়া উপস্থিত ছিলেন।

পাঠকের মতামত: