ঢাকা,সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

রুম না পেয়ে খোলা আকাশে রাত্রিযাপন

রাঙামাটি প্রতিনিধি :: মেঘের রাজ্য খ্যাত রাঙামাটির সাজেক পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণীয় স্থান। এখানকার উঁচু–নিচু সবুজে ঘেরা পাহাড়সহ শীতের সময় কুয়াশার চাদরে ঢেকে থাকা চারপাশ দেখতে পর্যটকরা পাড়ি জমান এ জনপদে। এ কারণে সারাবছর পর্যটকের ভিড় লেগে থাকে এখানে।

কিন্তু সাপ্তাহিক ছুটি ও বড় দিন মিলে টানা তিনদিন সরকারি ছুটি থাকায় রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেকে সবধরনের কটেজ–রিসোর্ট শতভাগ বুকিং হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন রিসোর্ট মালিকরা। এত শনিবার রাতে কটেজ–রিসোর্ট কোথাও রুম না পেয়ে অনেক পর্যটককে গাড়িতে অথবা তাবু টাঙিয়ে খোলা আকাশের নিচে রাত্রিযাপন করতে হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়।

সাজেকের কুঁড়েঘর রিসোর্টের মালিক মো. মামুন বলেন, শীত মৌসুম এবং টানা তিনদিন বন্ধ থাকার ফলে সাজেকের বেশিরভাগ কটেজ এক মাস আগে বুকিং হয়ে গেছে। এ কারণে গতকাল সাজেকে অনেক ট্যুরিস্টকে বাহিরে বা গাড়িতে রাত কাটাতে হয়েছে। তিনি বলেন, এই মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত আমাদের সবকটি রুম বুকড রয়েছে।

সাজেক ইউনিয়নের ১৬৯ নম্বর শিয়ালদাই মৌজার হেডম্যান এবং ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য জৈপুথাং ত্রিপুরা বলেন, শনিবার রাতে অনেক পর্যটক হোটেলে রুম না পেয়ে বাইরে তাবু টাঙিয়ে রাত কাটিয়েছে। তিনি বলেন, এখানে প্রায় ১২৭টির মতো কটেজ আছে কিন্তু তিনদিনের ছুটির কারণে সব কটেজ অগ্রিম বুকিং হয়ে গেছে।

সাজেক ইউপি সচিব বিশ্বজিৎ চক্রবর্ত্তী বলেন, সাজেক পর্যটন কেন্দ্রে কটেজগুলোতে এক রুমে তিন থেকে চারজন করে থাকলেও প্রায় দুই–তিন হাজার পর্যটক রাত্রিযাপন করতে পারে। কিন্তু সাপ্তাহিক ছুটি ও বড়দিনের বন্ধের ফলে সাজেকে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি পর্যটকের সমাগম হয়েছে। এর ফলে বাড়তি ট্যুরিস্টদের বাইরে রাত কাটাতে হচ্ছে।

পাঠকের মতামত: