ঢাকা,বুধবার, ৬ জুলাই ২০২২

থাকবে নিজস্ব চাঁদ, মেঘ! বাতাসে চলবে গাড়ি!

লন্ডনের থেকে ১৭ গুণ বড় শহর তৈরি করছে সৌদি আরব

অনলাইন ডেস্ক ::  থাকবে নিজস্ব চাঁদ, মেঘ! বাতাসে চলবে গাড়ি! লন্ডনের থেকে ১৭ গুণ বড় শহর তৈরি করছে সৌদি আরব
বিজ্ঞানের অগ্রগতির সাথে সাথে বিশ্বও দ্রুতগতিতে এগোচ্ছে। পাশাপাশি, উন্নত হচ্ছে মানুষের জীবনযাত্রাও! এমনকি, যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন শহর এবং দেশ। ইতিমধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়া এমন একটি শহর তৈরি করতে চলেছে যেখানে বন্যার কোনো প্রভাব পড়বে না।

এই শহরে বসবাস করতে হলে জনগণকে দিতে হবে ভাড়াও! তবে, এবার সবাইকে ছাপিয়ে এক বিস্ময়কর শহর তৈরি করতে চলেছে সৌদি আরব! সাধারণ শহরগুলির তুলনায় এই শহর বহুগুণ বড়। শুধু তাই নয়, এই শহরে এমন সব সুবিধা উপলব্ধ থাকবে যা কল্পনাই করা যায়না। সুবিশাল এবং অপূর্ব এই শহর তৈরির ঘোষণা অনেক আগেই করা হয়েছিল। স্বাভাবিকভাবেই, কোটি কোটি টাকা খরচ হবে এই শহর নির্মাণে।

জর্ডান ও মিশরের সীমান্তে একটি শহর স্থাপন করতে চলেছে সৌদি আরব। এর নাম NEOM, যা হবে হলিউডের সায়েন্স ফিকশন ছবির মতো। স্বপ্নের মতো এই শহরে পরিষেবা দেবে রোবট, বাতাসে চলবে গাড়ি। বায়ু শক্তি ও সৌরশক্তি থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ হবে এই শহরে। শুধু তাই নয়, এখানে উড়ন্ত ট্যাক্সিও থাকবে। সবচেয়ে বড় কথা এই শহরের নিজস্ব চাঁদ এবং নিজস্ব মেঘও থাকবে, যা থেকে পড়বে বৃষ্টিও। এই শহর তৈরিতে খরচ হবে প্রায় ৫০০ বিলিয়ন ডলার।

দ্য সান-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, ২০২৫ সাল থেকে মানুষ এই হাই-টেক NEOM শহরে বসবাস শুরু করবে। এই শহরটি লন্ডনের থেকে প্রায় ১৭ গুণ বড় হবে। এই শহরের চেয়ারম্যান হলেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। শহরটি রোবোটিক্সের একটি কেন্দ্রও হয়ে উঠবে।

শহরের পরিকল্পনা অনুযায়ী, সৌদি আরবের যুবরাজ সালমান এই শহরকে দুবাই, দোহা এবং কাতারের চেয়ে বড় বাণিজ্যিক কেন্দ্রে পরিণত করতে চান। এই কাজের জন্য তিনি জলের মতো টাকা খরচ করতে প্রস্তুত। ইতিমধ্যেই সৌদি আরব, NEOM শহরকে সবচেয়ে হাই-টেক করার জন্য একাধিক পেশাদারকে ডেকে পাঠিয়েছে। আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে, এই শহরে ঘর পরিষ্কারের কাজ পর্যন্ত করবে রোবট।

সৌদি আরবে বৃষ্টির অপ্রতুলতার জন্যে জলের অভাব ঘটলেও NEOM শহরে তেমন কোনো সমস্যা হবে না। কারণ ক্লাউড সিডিংয়ের সাহায্যে এই শহরে মেঘ তৈরি করা হবে, যা থেকে বাস্তবিক বৃষ্টিও হবে। “রোবট মার্শাল আর্ট”-এর সাহায্যে সৌদি আরব এই শহরের দিকে মানুষকে আকৃষ্ট করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এগুলি ছাড়াও, শহরটি তার নিজস্ব চাঁদ তৈরি করার পরিকল্পনাও করেছে, যা প্রতি রাতে NEOM-কে তার দীপ্তিতে আলোকিত করবে।

পাঠকের মতামত:

 
error: Content is protected !!