ঢাকা,মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০

জেলার ৫টি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে 

রামুতে মাস্টার্স সমমানের দাওরায়ে হাদিস পরীক্ষা চলছে

সোয়েব সাঈদ ::  কক্সবাজারের রামুর চাকমারকুল আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারূল উলুম মাদ্রাসা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মাস্টার্স সমমানের দাওরায়ে হাদিস (তাকমীল) পরীক্ষা ১৪৪১ হিজরী। সারাদেশে একযোগে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলেও কক্সবাজার জেলায় এটিই একমাত্র পরীক্ষা কেন্দ্র। এতে কক্সবাজার জেলার ৫টি মাদ্রাসার ৮১ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। গত ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ১০টি বিষয়ে এ পরীক্ষা শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) শেষ হবে পরীক্ষা।
আল হাইআতুল উলয়া লিল জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ এর অধিনে সারাদেশে ৬টি বোর্ডে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। চাকমারকুল আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারূল উলুম মাদ্রাসা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত পরীক্ষায় আল হাইআতুল উলয়া লিল জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ এর ২ জন নেগরান (কেন্দ্র পরিদর্শক) ছিলেন। এরা হলেন, মাওলানা মুহাম্মদ মহসিন ও মাওলানা মুফিজুর রহমান।
মারকায (কেন্দ্র) তত্ত¡াবধানে থাকা চাকমারকুল আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারূল উলুম মাদ্রাসার নির্বাহী মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, এ কেন্দ্রে কক্সবাজার জেলার ৮১ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে চাকমারকুল আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারূল উলুম মাদ্রাসার ২০ জন, কক্সবাজার মুসলিম বাজার আল-জামিয়া আল এমদাদিয়া আযীযুল উলুম মাদ্রাসার ৬ জন, মহেশখালী গোরকঘাটা আল জামেয়াতুল আরবিয়া আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার ৮ জন, টেকনাফ আল জামিয়া আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার ১৬ জন, টেকনাফ হ্নীলা আল জামেয়াতুল ইসলামিয়া দারুসসুন্নাহ মাদ্রাসার ৩১ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। তৎমধ্যে পরীক্ষায় ১০ জন শিক্ষার্থী অনুপস্থিত রয়েছে।
পরীক্ষায় কর্তব্যরত নেগরান (কেন্দ্র পরিদর্শক) মাওলানা মুহাম্মদ মহসিন ও মাওলানা মুফিজুর রহমান জানিয়েছেন, ২০ সেপ্টেম্বর প্রথম দিনের বোখারী শরীফ ২য় খন্ড পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) শেষ দিনে মো-আত্তা মালেক ও মুহাম্মদ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তাঁরা আরো জানান, প্রতিদিন ভিডিও কলের মাধ্যমে পরীক্ষার কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করেন, আল হাইআতুল উলয়া লিল জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ। পরীক্ষা শুরুর ৫মিনিট আগে মারকাযে (কেন্দ্র) প্রশ্নপত্র অনলাইনের মাধ্যমে পাঠানো হয। তাৎক্ষণিক ফটোকপি করে প্রশ্নপত্র পরীক্ষার্থীদের সরবরাহ করা হয়।
সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, শিক্ষার্থীরা মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। কেন্দ্রের বাইরে রাখা ছিলো স্যানিটাইজার সামগ্রী। এসময় কেন্দ্র পরিদর্শকদের (নেগরান) স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে দেখা গেছে।
উল্লেখ্য গত ২৫ আগস্ট শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সহকারি সচিব (মাদ্রাসা-২) সৈয়দ আসগর আলী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ নিশ্চিত করে কওমী মাদ্রাসা সমূহের কিতাব বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু ও পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি প্রদান করেন।

পাঠকের মতামত: