ঢাকা,রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় এক শিক্ষকের ডাবল চাকরি সত্য সংবাদ প্রকাশে মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি!

এম হাবিবুর রহমান রনি, নাইক্ষ্যংছড়ি :: 
বান্দরবান নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় এক শিক্ষকের ডাবল চাকরি খবর প্রকাশের জের ধরে দৈনিক আমাদের কক্সবাজার, অনলাইন নিউজপোর্টালায় সত্য সংবাদ প্রকাশে প্রধান সম্পাদক, ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, বার্তা সম্পাদক উক্ত সংবাদকর্মী চার জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি প্রকাশ করেছে কোডেক এনজিও জুনিয়ার হাই স্কুল এবং দোছড়ি উচ্চ বিদ্যালয় দুই স্কুলের এক শিক্ষক শাহা-জালাল পিতাঃ মিয়া হোছেন বাইশারী ইউনিয়নে এর ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা

বিবৃতিতে বলা হয়, বিভিন্ন অনলাইন পেপার পত্রিকায় , প্রিন্ট ও টেলিভিশনের সংবাদকর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করছেন। এইসব গণমাধ্যমের সহায়তায় মহামারী করোনার সবধরণের তথ্য জনগন পাচ্ছে। জনগণকে সচেতন করার ক্ষেত্রেও অন্যতম ভুমিকা রেখে যাচ্ছে এই গণমাধ্যম।

যেখানে একই সময় একজন শিক্ষক ডাবল চাকরি করার পর সংশ্লিষ্টদের লোকলজ্জার ভয়ে অন্তরালে যাওয়ার কথা। গ্রেফতার হয়ে বিচারের মুখোমুখি হওয়ার কথা। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিভিন্ন স্থানে ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের মেধার নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে, জনগণের ভবিষ্যতের আশা আলোর বাণী বেঁচে থাকার একমাত্র সম্পদ লুণ্ঠনকারীরা দম্ভ সহকারে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজে ১৯৭৪ সালে যে বিশেষ ক্ষমতা আইন তৈরি করেছেন, তার ২৫ নম্বর ধারা অনুযায়ী এক শিক্ষক ডাবল চাকরি এবং দুটি স্কুল থেকে বেতন ভাতা ভোগ করার অপরাধটি সর্বনিম্ন তিন মাসের কারাদণ্ড দেয়ার বিধান আছে এই আইনে। সত্য সংবাদ প্রকাশের পরও এভাবে মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি করার মাধ্যমে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ হচ্ছে। যা, স্বাধীন সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে বাঁধা দেয়ার শামিল। পাশাপাশি অন্য আরো ভূয়া শিক্ষক, ভুয়া ফেসবুক ফেক আইডি ব্যবহার কারীদেকে উৎসাহিত করা অপচেষ্টাও করা হয়েছে এতে।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সকল কর্মরত সরকারি বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষকরা ভুয়া শিক্ষক, ভুয়া ফেসবুক ফেক আইডি ব্যবহার কারীদেরকে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে বিচারের দাবি জানাচ্ছে।

পাঠকের মতামত: