ঢাকা,শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

চীনে আটকা পড়েছে ৫০০ বাংলাদেশি

১২ দেশে করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতি, ১৪ শহর তালাবদ্ধ, বন্ধ বাস ট্রেন বিমান, মৃত ৪১

নিজস্ব প্রতিবেদক ::

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। চীনের ১৪টি শহর প্রায় সিলগালার মতো ‘তালাবদ্ধ’ ঘোষণা করা হয়েছে। এদিকে এ রোগ ছড়ানোর কেন্দ্র উহান শহরে আটকা পড়েছেন পাঁচ শতাধিক বাংলাদেশি। অন্য দেশের দূতাবাস নিজ দেশের ছাত্রদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে কেউ খোঁজখবর নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, সিনহুয়া, দ্য টেলিগ্রাফ।

এ ব্যাপারে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম গতকাল সন্ধ্যা ৬টায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘বেজিং-এ আমাদের অ্যাম্বাসিতে হটলাইন খোলা হয়েছে (৮৬)-১৭৮০১১১৬০০৫। আমাদের কর্মকর্তা খায়রুল বাসার এবং আসিফ বাংলাদেশিদের করা ২৪৫ সদস্যের উই চ্যাট গ্রুপে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। বিশেষ করে উহান শহরে সরকার কাউকেই বাসা থেকে বের হতে দিচ্ছে না, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে।

বিচলিত না হয়ে সরকারি নির্দেশ মেনে চলার জন্য সবাইকে বলা হয়েছে।’ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, এরই মধ্যে এ ভাইরাস বিশ্বের ১২টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এবং এতে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ। গতকাল পর্যন্ত চীনে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪১ জনে। দেশটির হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে এই ভাইরাস ছড়ানো শুরু হওয়ায় এ শহরের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। ফলে সেখানে ৫০০ জনেরও বেশি বাংলাদেশি শিক্ষার্থী আটকা পড়েছেন।

উহানে থাকা বাংলাদেশিরা জানিয়েছেন, সেখানকার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন ৫০০ জনেরও বেশি বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। উহান থেকে বাস, ট্রেন ও বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বেশিরভাগ মানুষ ঘরে থাকছেন। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় খাবার সংকটেরও আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে কোনো বাংলাদেশি আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

কিন্তু বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে কেউ খোঁজ খবর নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা। তাদের মধ্যে, হুবেই ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে মেকানিক্যাল অ্যান্ড অটোমেশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র রাকিবুল তূর্য জানান, ইউনিভার্সিটিতে প্রায় দেড়শ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী আটকে আছেন। তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা সবাই ভয়ে আছি। কারণ ভাইরাস খুব দ্রুত ছড়াচ্ছে। আমাদের আশপাশে ভারত, শ্রীলঙ্কার যারা আছেন তারা জানিয়েছেন, উহানে তাদের যে নাগরিক রয়েছেন চেকআপ করিয়ে তাদের দেশে নিয়ে যাওয়া হবে।

কিন্তু আমাদের দূতাবাস এখনো কোনো খবর নেয়নি। এদিকে চীনে বাংলাদেশি দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন মাসুদুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত বাংলাদেশি কেউ আক্রান্ত হয়নি। পুরো উহান শহর লক ডাউন। যার কারণে আমরা চাইলেও তাদের কাছে যেতে পারছি না। তবে আমরা খোঁজখবর রাখছি।’

পাঠকের মতামত: