Home » পেকুয়া » পেকুয়ায় দূবৃর্ত্তদের হামলায় দু’কৃষককে পিটিয়ে আহত

পেকুয়ায় দূবৃর্ত্তদের হামলায় দু’কৃষককে পিটিয়ে আহত

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

ahotaপেকুয়া প্রতিনিধি ::

পেকুয়ায় দূবৃর্ত্তদের হামলায় দু’কৃষক গুরুতর আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার (৭ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের মৌলভী পাড়া এলাকায়। আহতরা হলেন একই ইউনিয়নের সাবেকগুলদী এলাকার মৃত.হাবিবুর রহমানের ছেলে বাদশাহ ও নুরুল হোসেনের ছেলে আবু ছৈয়দ। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন ওইদিন সকালে সাবেকগুলদী এলাকার মৃত.সাঁিচ মিয়ার ছেলে শফিউল আলম গংদের মালিকানাধীন ১একর ৬০শতক জমিতে চাষ উৎপাদনের জন্য কাজ করছিলেন বাদশাহ, আবু ছৈয়দ ও রবিউল আলম। তারা জমি প্রস্তুতির কাজ চালানোর সময় মৌলভী পাড়া এলাকার মৃত.মাষ্টার নুরুল ইসলামের ছেলে আতাউল্লাহ আরাফাত,মৃত.সোলতান আহমদের ছেলে বাদশাহসহ ৭/৮জনের একদল সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্তরা ওই স্থানে হানা দেয়। এ সময় তারা শফিউল আলম গংদের ওই তিন শ্রমিককে ব্যাপক মারধর করে আহত করে। এদের মধ্যে একজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। এ সময় ভীতি ছড়াতে ওই দুর্বৃত্তরা মহড়া দিয়ে এলাকায় আতংক ছড়ায় বলে স্থানীয়রা নিশ্চিত করেছেন। সুত্র জানিয়েছেন শফিউল আলম গং আশি শতক জমি বিগত ২০০৭সালে বারবাকিয়া ওয়ারেচী পরিবারের সাইফুর রহমান ওয়ারেচীর কাছ থেকে খরিদ করে। ওই সময় থেকে জমি শফিউল গংদের ভোগ-দখলে রয়েছে। অপর দিকে একই স্থানে আরো আশি শতক জমি সরকার থেকে বন্দোবস্তি পান সাঁিচ মিয়ার ছেলে প্রতিবন্ধি নুরুল হোছাইন ও কনে মমতাজ বেগম। ২০১১সালে সরকার এ জমি তাদের নামে লীজ দেয়। পরবর্তী ২০১৪সালে ওই জায়গার অনুকুলে দলিল সৃজন করে। যার নং-৩১০ ও ২৪০৪। বর্তমানে গ্রহিতাদের নামে জমাভাগ খতিয়ান সৃজিত হয়। যার নং-৪৭১৮ ও ৫০১০। জানা গেছে চলতি বোরো মৌসুমে জমিতে ফসল উৎপাদনের জন্য বীজতলা তৈরি করে তারা। ২৭ডিসেম্বর রাতে আতাউল্লাহ আরাফাত গং লবন প্রয়োগ করে বীজতলা বিনষ্ট করে দেয়। এনিয়ে নুরুল হোছাইন বাদি হয়ে পেকুয়া থানায় একটি সাধারন ডায়েরী লিপিবদ্ধ করেন। যার নং-১২১৪/১৬। এ ব্যাপারে নুরুল হোছাইন জানায় আমি ও আমার বোন দু’জনই প্রতিবন্ধি। সরকার আমাদের নামে আশি শতক জমি বন্দোবস্তি দেয়। গত কয়েক বছর ধরে আতউল্লাহ আরাফাতসহ কয়েকজন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা জমিতে বাধা গ্রস্ত করছে। আগে থেকে চাঁদা দাবি করছে। গতকাল তারা নতুন করে পাশ^বর্তী আমাদের পরিবারের খরিদা জায়গা থেকে শ্রমিকদের মারধর করে তাড়িয়ে দিয়েছে। লম্বা বন্ধুক নিয়ে ভীতি ছড়িয়ে এলাকায় অস্ত্রের মহড়া দিয়েছে। আমাদের কাছ থেকে ৫০হাজার টাকা চাঁদা দাবি করছে। স্বাক্ষী না দিতে প্রত্যক্ষদর্শীদের প্রকাশ্যে হাকাবকা করছে। স্বাক্ষী দিলে স্থানীয়দের মারধর, এলাকা ছাড়া ও ঘরবাড়ি জ¦ালিয়ে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দারুল ইহসানের সার্টিফিকেটের বৈধতা দিতে রাজি নয় ইউজিসি

It's only fair to share...21500ডেস্ক নিউজ ::সম্প্রতি বন্ধ হয়ে যাওয়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় দারুল ইহসানের সার্টিফিকেটের ...