ঢাকা,মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

কাজিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে শিশু খাদ্য ও স্কুলব্যাগ বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া ::
কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার কাজিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অভিভাবক ও মা সমাবেশ এবং কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে শিশু খাদ্য ও স্কুলব্যাগ বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার ২০ নভেম্বর বিকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শিশু খাদ্য ও স্কুলব্যাগ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)জেপি দেওয়ান।

চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মানবিক সহায়তা কর্মসুচির (২০২৩-২০২৪ অর্থবছর) আওতায় বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর মাঝে শিশু খাদ্য এবং শিক্ষা অধিদফতরের শিখন প্রকল্পের অধীনে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের মাঝে এসব স্কুলব্যাগ বিতরণ করা হয়েছে।

কাজিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির (এসএমসি) সভাপতি সাংবাদিক এম জিয়াবুল হক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবু হাসনাত সরকার, চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো.নুরুল আখের, চকরিয়া পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এম নুরুস শফি, বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক জিএম রুকুনউদ্দিন, চকরিয়া পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি রাজিফুল মোস্তফা রাজিফ, জাহাঙ্গীর আলম দুদু মেম্বার।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শাহরিয়ার আওরঙ্গজেব চৌধুরী তারেক এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সুচিত্রা চৌধুরী, সহকারী শিক্ষক পারভীন আক্তার, সহকারী শিক্ষক জেসমিন আক্তার, সহকারী শিক্ষক মিশোরী জন্নাত মিশু, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কার্যালয়ের সহকারী সৈয়দ আকবর, সামশুল আলম, কাজী বোরহান উদ্দিন, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি আসমাউল হুসনা, অভিভাবক সদস্য জমির উদ্দিন, অভিভাবক সদস্য জান্নাতুল ফেরদৌস, অভিভাবক সদস্য তানিয়া সুলতানা প্রমুখ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য, অভিভাবক ও কোমলমতি শিক্ষার্থী এবং সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জেপি দেওয়ান বলেছেন, আজকের শিশু আগামীদিনের ভবিষ্যৎ কর্ণধার। দেশগড়ার অধম্য কারিগর। কোমলমতি শিক্ষার্থীরাই আগামীতে দেশের কল্যাণে কাজ করবে। সেই জন্য কোমলমতি শিক্ষার্থীদের দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে তৈরি করতে হবে। একজন শিক্ষার্থী শুধু বিদ্যালয়ে পড়লে দক্ষ মানবসম্পদ হবে না, তাকে আধুনিক জ্ঞান বিজ্ঞান সম্পন্ন লেখাপড়ার পাশাপাশি প্রযুক্তি এবং প্যাকটিক্যাল কাজে সম্পৃক্ত করে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এসব নিশ্চিতে বর্তমান সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্বিক উন্নয়ন অগ্রগতি, শিক্ষক শিক্ষার্থীদের কল্যাণে সবধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছেন।

ইউএনও জেপি দেওয়ান বলেন, গরীর হোক আর ধনী হোক প্রতিজন মা-বাবাকে তার সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে স্বপ্ন দেখতে হবে। তাকে জীবনের অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌঁছাতে কাজ করতে হবে। সেই কাজ হলো লেখাপড়া। একজন শিক্ষার্থী দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে উঠতে শিক্ষক অভিভাবক উভয়ের ভুমিকা থাকতে হবে। সবাই যার যার অবস্থান থেকে কাজ করলে আজকের শিশু আগামীদিনের স্বর্নিভর নাগরিক হিসেবে তৈরি হবে।

পাঠকের মতামত: