ঢাকা,শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪

কুতুবদিয়ায় চাকরির ফাঁদে যুবক-যুবতীদের কাছ থেকে টাকা আত্মসাৎ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কুতুবদিয়া :
কুতুবদিয়ায় ভূয়া প্রতিষ্ঠানের নামে চাকরির প্রলোভনে বেকার যুবক যুবতীদের কাছ থেকে টাকা আত্মসাৎ করেছে এক সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র। বুধবার ওই প্রতারক চক্রের প্রধান শারমিন আক্তারকে বড়ঘোপ ইউনিয়নের আমজাখালী এলাকার থেকে উপজেলা সহকারী (ভুমি) কমিশনার জর্জ মিত্র চাকমা তাকে আটক করে থানায় হস্তান্তর করেন। পরে, বৃহস্পতিবার চাকরিপ্রার্থীদের টাকা ফেরত দেয়ার অঙ্গীকারে বড়ঘোপ ইউনিয়নের মাধ্যমে ওই প্রতারক শারমিন আক্তারকে ছেড়ে দেয়া হয় বলে জানান ওই ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম।

জানা যায়, কক্সবাজারের রামু উপজেলার মধ্য মেরংলেয়া এলাকার গোলাম সুলতানের কন্যা শারমিন আক্তার। কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়নের আমজাখালীতে তার দাদার বাড়ী। সেই সুবাদে ওই এলাকার কয়েকজনের মাধ্যমে যুব রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির নামে জনবল নিয়োগের কথা বলে দ্বীপের সহজ সরল বেকার যুবক যুবতীদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছে। তিনি যুব রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বড় কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিতেন এবং বেশি বেতনের নিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে যথাক্রমে ১০, ৮,৬,৪ হাজার টাকা গ্রহণ করে। এ প্রতারণা কাজে তাকে সহায়তা করেছেন জনি, সাইফুল সহ আরও কয়েকজন।

ওই নারী প্রতারক শারমিন আক্তার বলেন, এক সময়ে তিনি চাকরি করতেন। চাকরি হারিয়ে যুব রেড ক্রিসেন্টের নাম ব্যবহার করে ভূয়া নিয়োগের পেক্ষিতে কুতুবদিয়ার ২৪ জনের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এবিষয়ে কুতুবদিয়া থানার পরিদর্শক ( তদন্ত) কানন সরকার বলেন, চাকরিপ্রার্থীরা প্রতারক শারমিন আক্তারের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ না করায় বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালামের কাছে তুলে দেয়া হয়েছে।

এদিকে, প্রতারক শারমিন আক্তার ও তার সহযোগীদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানান সচেতন মহল।

পাঠকের মতামত: