ঢাকা,মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

ঈদগাঁও উপজেলার প্রথম বরাদ্দ ১৬ কোটি টাকার প্রকল্প

আনোয়ার হোছাইন ঈদগাঁও,কক্সবাজার ::  কক্সবাজার জেলায় নবসৃষ্ট ঈদগাঁও উপজেলা প্রথম বরাদ্দে ১৬ কোটি টাকার প্রকল্প পেয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে জারিকৃত গেজেটে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। উপজেলা অনুমোদনের পর দেরিতে হলেও প্রথম এ বরাদ্দ পাওয়ার সংবাদে লাখো জনগণের মাঝে খুশির আমেজ পরিলক্ষিত হচ্ছে।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, বিগত ১৩ জুন স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিকল্পনা ৩ শাখার উপসচিব ডা.বেলাল হোসেন স্বাক্ষরিত পত্রে কক্সবাজার জেলায় নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলায় “নিরাপদ পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন ও ড্রেনেজ ব্যাবস্থাপনা সম্প্রসারণ” শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ ১৫.৯৫৩০ কোটি (পনের কোটি পঁচানব্বই লক্ষ ত্রিশ হাজার) টাকার একটি প্রকল্প বিগত ২৬ জুন ২০২৩ ইংরেজি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী কতৃক অনুমোদিত হয় । প্রকল্পটি বাস্তবায়নের সময় নির্ধারণ হয় এপ্রিল ২০২৩ হতে জুন ২০২৫ সাল পর্যন্ত।

এদিকে দেরিতে হলেও কক্সবাজার সদর উপজেলা থেকে পৃথক করে পাঁচ ইউনিয়ন নিয়ে ঈদগাঁও উপজেলা অনুমোদনের বছরাধিককাল অতিবাহিত হলেও উপজেলা কমপ্লেক্স স্থাপনের জায়গা নির্ধারণ নিয়ে একটি পক্ষ সরকার নির্ধারিত স্থানের বিরুদ্ধে মামলা দেয়।মামলা সংক্রান্ত জটিলতায় থমকে যায় স্বপ্নের উপজেলা বাস্তবায়ন কার্যক্রম। উপজেলাবাসীর উপজেলার সুফল স্বপ্নই রয়ে যায়।এতে দিন দিন জনগণের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হতে থাকে। অবশেষে বিগত ১ জুন মহামান্য হাইকোর্ট মামলাটি খারিজ করে দিয়ে যথাস্থানেই উপজেলা কমপ্লেক্স স্থাপনের সরকারি সিদ্ধান্ত বহাল রেখে রায় দেন।এর পরপরই বিগত ৪ জুন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, নির্বাচন কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীর অতিরিক্ত দায়িত্ব অর্পণ করেন কক্সবাজার সদর উপজেলার উপরোক্ত কর্মকর্তাদের। এছাড়া নবসৃষ্ট উপজেলা হিসেবে উপজেলা পরিষদ গঠন না হওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীকে উপজেলা পরিষদ গঠন ও পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত দায়িত্ব পালনের নির্দেশনা দিয়ে বিগত ১১ জুন সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ পরিপত্র জারি করেন।

পাঠকের মতামত: