ঢাকা,শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪

ডেঙ্গুর হটস্পট হয়ে উঠছে কক্সবাজার

চকরিয়া নিউজ ডেস্ক :: মৌসুম শুরুর আগেই দেশে দ্রুত বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। ঢাকার বাইরে কক্সবাজার হয়ে উঠছে বড় হটস্পট। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় থাকা রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ১০৬৬ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। কক্সবাজারে থাকা বাংলাদেশিদের মধ্যে এই সংখ্যা ৪২৬। অর্থাৎ মৌসুম শুরুর আগেই এ জেলায় ১৪৯২ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে, যা একই সময়ে ঢাকায় শনাক্ত রোগীর চেয়ে বেশি।

বাংলাদেশে সাধারণত জুন থেকে ডেঙ্গুর মৌসুম শুরু হয়। কারণ ওই সময়ে শুরু হয় বর্ষাকাল। এই প্রাদুর্ভাব চলে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। এ বছর মৌসুম শুরুর আগেই হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪৬ জন এডিস মশাবাহিত এ রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪১ জনই ভর্তি হয়েছেন ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে। আর এ বছর সব মিলিয়ে ১৭৫০ জন ডেঙ্গু নিয়ে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে ১১৬০ জন ঢাকায় এবং বাকিরা ঢাকার বাইরের। এ বছর ডেঙ্গুতে মারা গেছেন ১৩ জন, যাদের দশজন ঢাকার। তবে এই পরিসংখ্যানে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের তালিকা আসেনি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রতিদিন ডেঙ্গু আক্রান্ত বা মৃত্যুর যে পরিসংখ্যান দেয় সেখানেও রোহিঙ্গাদের তথ্য থাকে না। খবর বিডিনিউজের।

এর ব্যাখ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক নাজমুল ইসলাম বলেন, রোহিঙ্গা কমিউনিটি যেহেতু আমাদের নাগরিক না, তাদের তথ্য আমরা একসঙ্গে আনি না। তবে যেহেতু তারা আমাদের সঙ্গেই থাকে, জাতিসংঘও তাদের তথ্যটা চায়, সেহেতু গুরুত্ব দিয়েই আমরা তাদের তথ্য সংগ্রহ করি এবং আলাদাভাবে হিসাব করি।

এ বছরের পরিস্থিতি তুলে ধরে তিনি বলেন, কক্সবাজারে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মধ্যে ডেঙ্গু রোগী বাড়ছে। সেখানকার স্থানীয় মানুষদের মধ্যে ছড়ানো এই সংখ্যাটাও উপেক্ষা করার মতো নয়। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের যা পরিস্থিতি, তাতে সেখানে ডেঙ্গু ব্যবস্থাপনা কঠিন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

নাজমুল ইসলাম বলেন, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মানুষের মাঝে সচেতনতার যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে। তাদের কালচার আলাদা হওয়ায় এ ব্যাপারে কাজও সেভাবে করা যায় না। তারা একটা নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে থাকেন, সেখানে স্বাস্থ্যকর্মীদেরও অনেক নিয়ম মেনে কাজ করতে হয়।

তিনি বলেন, তাদের পরিষ্কার পানির উৎস সীমিত, তাই তারা পানি সংগ্রহ করে অনেক সময় খোলা পাত্রে রেখে দেয়, যা মশার জন্য একটা ভালো প্রজননক্ষেত্র। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কম জায়গায় মানুষ বেশি। ফলে সেখানে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অন্যান্য এলাকার চেয়ে বেশি।

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন এলাকায় যেখানে ঘনবসতি বেশি, সেখানে মশার উপদ্রব বেশি। তবে কোন এলাকায় সবচেয়ে বেশি, সেটা নির্দিষ্ট করে বলা কঠিন বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমরা পুরো ঢাকা শহরকেই বিবেচনায় নিচ্ছি। আমাদের কাজ রোগী ব্যবস্থাপনা। ডেঙ্গু কোথায় বেশি এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার দায়িত্ব স্থানীয় সরকারের।

ডেঙ্গু বাড়ছে কয়েক কারণে, আগেই হুঁশিয়ারি : ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশার বিস্তার বাড়ার কারণ নিয়েও আলোচনা হয় সংবাদ সম্মেলনে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ডেঙ্গু বাড়ার পেছেন জলবায়ু পরিবর্তন, অপরিকল্পিত নগরায়ন ও জনঘনত্বের মতো কারণগুলো তুলে ধরেন।

অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবির বলেন, বাংলাদেশ অনেক জনবহুল, তার ওপর এখানে দ্রুত নগরায়ন হচ্ছে। ফলে এখানে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ সহজ না। এরই মাঝে অপ্রত্যাশিত কিছু মৃত্যু হয়েছে। মে মাসে যেটুকু হয়েছে, তা অন্যান্য সময়ে হয়নি।

অধ্যাপক ডা. মো. রোবেদ আমিন বলেন, জানুয়ারি মাসের পর থেকে আমাদের অনেক গরম পড়েছে। বিজ্ঞান বলে, কোনো জিওগ্রাফিতে এক ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বাড়লে তার ডাবল পরিমাণ ডেঙ্গু কেইস চলে আসে। তাপমাত্রা যখন অনেক বেড়ে গেল তখন বৃষ্টিপাত, বাতাসের গতি কত ছিল তা দেখে কিন্তু অনুমান করা হয়েছে প্রাক মৌসুমেই ডেঙ্গু কেইস বেশি হবে।

বেসরকারিতে ডেঙ্গু পরীক্ষা সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা : বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু সংক্রমণ পরীক্ষায় ৫০০ টাকার বেশি নেওয়া যাবে না বলে হুঁশিয়ারি এসেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবিরের কাছ থেকে। সরকারি হাসপাতালে এই ব্যয় হবে ১০০ টাকা। তিনি বলেন, ডেঙ্গু পরীক্ষাসহ ডেঙ্গু চিকিৎসায় আমরা সুনির্দিষ্ট গাইডলাইন করে দিয়েছি। গাইডলাইন অনুযায়ীই সবাইকে চিকিৎসা দিতে হবে। প্লাটিলেট ব্যবহার নিয়েও গাইডলাইনে নির্দেশনা রয়েছে।

পাঠকের মতামত: