ঢাকা,শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

মাতামুহুরীর বালুদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার

নিজম্ব প্রতিবেদক ::
কক্সবাজারের চকরিয়ায় মাতামুহুরী নদী, বিভিন্ন ছড়া থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন এবং ফসলি জমির টপসয়েল কাটার বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান জোরদার দেখা যাচ্ছে।

কোন কোন এলাকায় বালু খেকোদের অপতৎপরতা চলছে সেই তালিকা ধরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এই অভিযান চলমান রয়েছে। আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে ইউএনও এবং এসি ল্যান্ড পৃথকভাবে এই অভিযান পরিচালনায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

এতে মাতামুহুরী নদীসহ বিভিন্ন ছড়া থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে জড়িতদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের দেওয়া তথ্যানুযায়ী- গেল জানুয়ারি মাসের প্রথমদিন থেকে এই অভিযান শুরু হলেও মাঝখানে দাপ্তরিক কাজের চাপের কারণে অভিযান স্তিমিত ছিল।

তবে চলতি মাসের শুরু থেকে প্রায় প্রতিদিনই অব্যাহতভাবে চলছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান। সূত্রানুযায়ী- নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে ইউএনও জেপি দেওয়ান এবং এসি ল্যান্ড মো. রাহাত উজ-জামানের নেতৃত্বে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত সাঁড়াশি অভিযানে বালু খেকো দুইজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

তন্মধ্যে একজনকে একমাস ও অপরজনকে দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। এছাড়াও অবৈধ বালু উত্তোলনে জড়িতদের বিরুদ্ধে ১৯টি মামলা দিয়ে ৯ লক্ষ ২২৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

অপরদিকে জব্দের পর ধ্বংস করা হয়েছে বালু তোলায় ব্যবহৃত বিপুল পরিমাণ শ্যালোমেশিন, একাধিক ড্রেজার, বিপুল পরিমাণ পাইপ।

এই বিষয়ে ইউএনও জেপি দেওয়ান এবং এসি ল্যান্ড মো. রাহাত উজ-জামান বলেন, ‘মাতামুহুরী নদীসহ বিভিন্ন ছড়াখাল থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪(ঘ) ও (গ) ধারায় উপজেলা প্রশাসনের কঠোর অবস্থান অব্যাহতভাবে চলবে।

যত বড় প্রভাবশালী হউক না কেন, কাউকে পরিবেশ বিধ্বংসী কাজ করতে দেওয়া হবে না।’

পাঠকের মতামত: