ঢাকা,শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

পেকুয়ায় গাছ থেকে পড়ে নিহত ও নিখোঁজের ৪দিন পর কিশোরের গলিত লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, পেকুয়া ::  কক্সবাজারের পেকুয়ায় নিখোঁজের ৪দিন পর ভোলাখালে ফাতানো বিহিন্দি জালে মিলল কিশোর ছাঈদুল ইসলাম (১৬) এর অর্ধ গলিত লাশ। মগনামা কাটাফাঁড়ি ভোলাখালে ফাতানো জালে আটক পড়ে লাশ। স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। এ সময় পুলিশ নদী থেকে লাশ উদ্ধার করে। মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম, ইউপি সদস্য মাহমুদুল করিম মাদু ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। খবর পেয়ে লাশ দেখতে শত শত উৎসুক নারী পুরুষ নদীর চরে ভিড় জমায়। সাঈদুল হক মগনামা বাজার পাড়া এলাকার শহীদুল ইসলামের ছেলে বলে জানা গেছে। বৃহষ্পতিবার (১৬জানুয়ারী) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মগনামা লায়ন মুজিবুর রহমানের বাড়ি সংলগ্ন ভোলাখালে লেদুর ফাতানো বিহিন্দি জালে ওই লাশ পাওয়া যায়। নিহত ছাঈদুল ইসলামের মা তসলিমা বেগম জানায়,গত ১২ জানুয়ারী রাতে নিখোঁজ ছাঈদুল। বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করি। চার দিন পরে নদীতে আমার ছেলের গলিত লাশ পাওয়া যায়। স্থানীয়রা জানায়, ছাঈদুল ইসলাম মামার বাড়িতে কামলার কাজ করে। কয়েকদিন আগে সে নিখোঁজ হয়। ভোলাখালের নদীতে তার অর্ধগলিত লাশ পাওয়া যায়। তার গলায় গামছা (শীতের কাপড়) পেচানো ছিল। ধারনা করা হচ্ছে পারিবারিক দ্বন্ধে তাকে খুন করে নদীতে ফেলে দেয়া হয়েছে। মগনামা ইউপির সদস্য ও নিহত ছাঈদুল ইসলামের মামা মাহমুদুল করিম মাদু জানায়, চারদিন আগে আমার ভাগিনা নিখোঁজ হয়। এ বিষয়ে নিহতের মা পেকুয়া থানায় নিখোঁজ ডায়েরী লিপিবদ্ধ করে। বিকেলে খালে লাশ পাওয়া গেছে। পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মিজানুর রহমান জানায়, খবর পেয়ে নদী থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ প্রয় অর্ধ গলিত। গলায় গিট মারা মাপলার রয়েছে। আপাতত কিছু বলা যাচ্ছেনা। ময়না তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

#############

পেকুয়ায় গাছ থেকে পড়ে দিনমজুর নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, পেকুয়া ::

কক্সবাজারের পেকুয়ায় হাসপাতালের বেডে কথা বলতে বলতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল গাছ থেকে পড়ে যাওয়া দিনমজুর আব্দুল মালেক (৩৫)। নিহত আব্দুল মালেক উপজেলার টইটং ইউনিয়নের নতুন পাড়া গ্রামের ছিদ্দীক আহমদের ছেলে। বৃহষ্পতিবার (১৬জানুয়ারী) দুপুর দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ইউপি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিহতের স্ত্রী শাহনা আক্তার জানায়, আমার স্বামী দিনমজুর। সকাল ১১টার দিকে মজুরী করতে নতুন পাড়া আমীন শরীফের বাড়িতে যায়। বসতভিটার একটি গাছ কর্তন করছিল। এ সময় গাছ থেকে মাটিতে পড়ে যায় আমার স্বামী। হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল খালেক, সোহেল, নুরুল ইসলাম জানায়, আমীন শরীফের বসতভিটার একটি বড় আকারের বৃক্ষ কর্তন করছিল আব্দুল মালেক। গাছটি কাটার এক পর্যায়ে পাশের আরেকটি গাছে হেলে পড়ে। এ সময় তিনি অপর আরেকটি গাছে উঠে ডালপালা পরিস্কার করছিল। হঠাৎ গাছের ঢাল ভেঙ্গে মালেক নিচে পড়ে যায়। এ সময় মাটি পুতে থাকা সীমানা প্রচীরের একটি পিলারের উপরে পড়ে গুরুতর আহত হয়। আমরা উদ্ধার করে পেকুয়া ডাক্তার মুজিবুর রহমানের নুর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তারা আরো জানায়, এ সময় হাসপাতালে চিকিৎসক ছিলেন না। ডাক্তার নামাযে ছিলেন। নার্স একটি কাগজে ওষুধ লিখে দেন। হাসপাতালের বেড়ে যন্ত্রনায় ছটফট করছিল। কথা বলতে বলতে আমাদের চোখের সামনে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি। আধা ঘন্টা পরে ডাক্তার মনির উল্লাহ এসে আব্দুল মালেককে দেখেন। এ সময় তিনি মৃত বলে জানান। পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল আজম জানায়, খবর পেয়েছি। পুলিশ পাঠানো হবে। জানা গেছে, আব্দুল মালেক চার সন্তানের জনক। তার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। টইটং ইউপির চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী জানায়, আব্দুল মালেক একজন দিনমজুর। সে শান্তপ্রিয় ও সহজ সরল লোক। তার এ ধরনের মৃত্যু খুবই বেদনাদায়ক।

#####################

পেকুয়ায় বাজার সমিতির ভোট স্থগিত করেছে হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক, পেকুয়া ::  পেকুয়ায় কবির আহমদ চৌধুরী বাজার ব্যবসায়ী কো-অপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লি: এর নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়ের করা হয়েছে।

উচ্চ আদালতের আদেশে পেকুয়ার বৃহত্তম ব্যবসায়ী কো-অপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন ৬ মাসের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। হাইকোর্টের আদেশের সার্টিফাইড কপি পেকুয়া সমবায় কর্মকর্তার নিকট প্রেরিত হয়েছে। ব্যবসায়ী সমিতির নেতা ও পেকুয়া বাজারের ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধি টীম ওই দিন রায়ের কপি নিয়ে পেকুয়ায় সমবায় কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। এ সময় সমবায় কর্মকর্তা ও পেকুয়া কো-অপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লি: এর ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন ২০২০ এর নির্বাচনী কর্মকর্তা কামাল পাশাকে হস্তান্তর করেছেন। এ বিষয়ে সমবায় কর্মকর্তা কামাল পাশা বলেন, ব্যবসায়ীরা আমাকে একটি কাগজ দিয়ে গেছেন। আসলে আমি সেটি এখনো পড়ে দেখেনি। এ ব্যাপারে আমি বিস্তারিত পরে বলব। পেকুয়ায় কবির আহমদ চৌধুরী বাজারে ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের জন্য ভোট গ্রহনের দিনক্ষন চুড়ান্ত ছিল। চলতি মাসের ১৯ জানুয়ারী ভোট গ্রহনের দিনক্ষন নির্ধারন ছিল। নির্বাচন উৎসব ও আমেজপূর্ণ হয়ে উঠেছিল। তিনটি ডিরেক্টর পদ, একটি সহ-সভাপতি পদ একটি সাধারন সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দিতার জন্য প্রার্থীরা ভোট যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। তবে সভাপতি পদে একমাত্র প্রার্থী ছিলেন মিনহাজ উদ্দিন। ওই পদে কোন প্রার্থী মনোনয়ন জমা না দেয়ায় তাকে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত ঘোষনা করে। সুত্র জানায়, বাজারের ব্যবসায়ী ও নবীল ট্রেডার্সের স্বত্তাধিকারী পেকুয়া সদর ইউনিয়নের শেখেরকিল্লাঘোনা গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে হাজী গিয়াস উদ্দিন নির্বাচন স্থগিত চেয়ে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়ের করে। যার নং ৩৯৯/২০। রিটের প্রেক্ষিতে ১৬ জানুয়ারী হাইকোর্টে শুনানী হয়েছে। বাদীর পক্ষে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্ট বিভাগের জৈষ্ট্য আইনজীবি মো: মুজিবুর রহমান শুনানীতে অংশ নিয়েছিলেন। এ সময় হাইকোর্টের বিচারপতি জে.বি.এম হাসান ও বিচারপতি মো: খাইরুল আলমের যৌথ বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছেন। পেকুয়া বাজারের দোকান মালিক সমিতির সভাপতি ইসমাইল সিকদার ও সাধারন সম্পাদক সাংবাদিক শাখাওয়াত হোসাইন সুজন, বাজারের ব্যবসায়ী মৌলভী মুজিবুর রহমান ও মো: বাদশাহসহ প্রতিনিধি টীম রায়ের কপি সমবায় কর্মকর্তাকে প্রেরন করেছেন।

পাঠকের মতামত: