Home » কক্সবাজার » পেকুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১০

পেকুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১০

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

পেকুয়া প্রতিনিধি:  পেকুয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় উভয়পক্ষের মহিলাসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও চট্রগ্রাম বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এদের মধ্যে ১ নারীসহ উভয়পক্ষের ৪ জনকে চমেক হাসপাতালে রেফার করে।

আজ ৬ জুন (বৃহস্পতিবার) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের পূর্ব সোনাইছড়ি রমিজপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন-ওই এলাকার মৃত কালা মিয়ার ছেলে লাতু মিয়া (৫৫), ছেলে রুবেল (২২), তারেক (১৬), মেয়ে লক্ষী বেগম (১৪)। অপরপক্ষের আহতরা হলেন নুরুল আবছারের ছেলে লোকমান (৩৫), তার ছেলে আবু হানিফ প্রকাশ বাচ্চু (১৮), স্ত্রী রাশেদা বেগম (২৫), মৃত নুরুল আবছারের স্ত্রী নুরুন্নাহার (৫০), লোকমানের মেয়ে ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্রী সানজিদা বেগম (১৫), ওসমান গণির স্ত্রী রহিমা বেগম (২৬)।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সুত্র জানায়, সোনাইছড়ি রমিজপাড়া গ্রামে বনবিভাগের মালিকানাধীন ১ হেক্টর সামাজিক বনায়নের জায়গা নিয়ে লাতু মিয়া ও একই এলাকার লোকমানের মধ্যে বিরোধ চলছিল। ২০০৩ সালের ওই বাগানের উপকারভোগী লাতু মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ কাইছার। অপরদিকে একই স্থানে পৃথক প্লটে লোকমানও বনবিভাগের অংশীদার। একটি মামলায় লাতু মিয়া দীর্ঘদিন জেলে ছিল। ওই সুবাধে লোকমান গং কাইছারের প্লটে জবর দখল করে ঘর তৈরী করে।

গত ৩ বছর আগে লাতু মিয়া জেল থেকে বের হয়। ছেলের জায়গা দখলে নিতে প্রচেষ্টা চালায়। এ নিয়ে কয়েক দফা সংঘর্ষ হয়েছে। থানা কোর্টে উভয়পক্ষ একাধিক মামলা মোকদ্দমা রুজু করে। ঘটনার দিন সকালে লাতু মিয়া তার জায়গায় পৌছলে লোকমান গং বাধা দেয়। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উভয়পক্ষের মধ্যে প্রচন্ড ইট পাটকেল ও গাছের টুকরা ছুড়াছুড়ি হয়। এ সময় উভয়পক্ষের এ সব লোকজন জখম হয়েছে।

গ্রামবাসী জানায়, জায়গার বিরোধ নিস্পত্তি করতে উভয়পক্ষের মধ্যে একাধিক বৈঠক হয়েছে। টইটং ইউপির চেয়ারম্যান জায়গা পরিমাপ সহ উভয়পক্ষকে সমান অংশীদার করে জায়গাতে সীমানা নির্ধারনী পিলার পুঁতে দেয়। থানা ও ইউএনওর কার্যালয়েও বৈঠক হয়েছে। সেখানে লাতু মিয়ার স্বত্তের পক্ষে জোরালো মতামত ও সিদ্ধান্ত উপনীত হয়। বনবিভাগও জায়গা চিহ্নিত করনসহ বিরোধ নিস্পত্তিতে কাজ করে। তারাও দলিল ও লাতুর পক্ষে মত দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

তুমুল বিরোধীতা সত্ত্বেও ১৫ হাজার কোটি টাকার সম্পূরক বাজেট পাস, ইসি’র অতিরিক্ত ব্যয় আড়াই হাজার কোটি টাকা

It's only fair to share...000নিউজ ডেস্ক :: জাতীয় পার্টি, বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় সদস্যদের তুমুল বিরোধীতা সত্ত্বেও ...

error: Content is protected !!