ঢাকা,বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট ২০২১

অভিযুক্ত প্রধান আসামি ইউনুস পলাতক

চকরিয়ায় কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় সহযোগী নারী গ্রেফতার

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া :: কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে পানির সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করিয়ে ১২ বছরের কিশোরী ধর্ষণকাণ্ডের ঘটনার সহযোগী নারী রোকসানা আক্তারকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রোববার (১৩ জুন) দিবাগত রাত ১১টার দিকে তাকে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের গর্জনতলী এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী।

তিনি জানান, গত ২ জুন বিকালে চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডস্থ গর্জনতলী এলাকায় পানির সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করিয়ে ১২ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার সাথে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রাখে র‌্যাব।

পরবর্তীতে জানা যায়, রোকসানা আক্তার বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে তারই প্রতিবেশী ১২ বছরের ওই কিশোরীকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। বাড়িতে নিয়ে শিশুটিকে খাবার খেতে দেয় এবং পানিতে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে তাকে পানি পান করায়। শিশুটি অচেতন হয়ে পড়লে তাকে পাশের রুমে নিয়ে শুইয়ে রাখে। এরপর পরিকল্পনা অনুসারে ইউনুস নামের ব্যক্তিকে খবর দেয়।

অভিযুক্ত ইউনুছ সহযোগি নারী রোকসানার সহায়তায় ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে শিশুটি অজ্ঞান হয়ে যায়। এরপর তারা কিশোরীকে বাড়িতে পৌঁছিয়ে দেয়।

র‌্যাবের এএসপি আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী বলেন, ভিকটিম ওই কিশোরীকে বাড়িতে আনার পর তাঁর মা অজ্ঞান হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা সদুত্তর দিতে ব্যর্থ হয়। এরপর তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটি ধর্ষিত হয়েছে জানায় এবং চিকিৎসা প্রদান করে। ঘটনার পর থেকে সত্যতা যাচাইপূর্বক অভিযান পরিচালনা করে ধর্ষণকাণ্ডের সহযোগী রোকসানা আক্তারকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

তিনি বলেন, মামলার প্রধান আসামি পলাতক ইউনুসকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

 

 

পাঠকের মতামত: