ঢাকা,মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

“চকরিয়ায় মোজাম্মেলের বিরুদ্ধে চেক প্রতারণা মামলা” প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

গত ২৮ মে দৈনিক কক্সবাজারসহ বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায়  শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। সংবাদটি মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আমি উক্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

মূল বক্তব্য হল- চকরিয়ার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ম্যানগ্রোভের প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে স্বচ্ছতা ও জবাবহিদিতার মাধ্যমে এমডি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসতেছি। কোম্পানির নিয়ম অনুযায়ি প্রতিবছর বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রতিষ্ঠানটির সকল শেয়ার হোল্ডারদের উপস্থিতিতে আয় ব্যয়ের সকল হিসাব যথাযথভাবে উপস্থাপন করে আসিতেছিলাম। সুন্দর ও গোছালো এ কার্যক্রমে ঈর্ষান্বিত হয়ে কোম্পানিটির চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী মানিকের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ইন্দনে আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে বর্তমান এমডি সোহরাব মোস্তফা রিকন ও তার সহযোগিরা। উপরোল্লেখিত তারিখে প্রকাশিত সংবাদে ওই চক্রটি একটি চেক প্রতারণার ভিত্তিহীন অভিযোগ আনেন আমার বিরুদ্ধে। এতে হাস্যকরভাবে সীমাহীন দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার কাল্পনিক অভিযোগ উপস্থাপন করা হয়।

তাছাড়া, গত ১৬/০২/২০১৮ইং সালে বার্ষিক সাধারণ সভায় ৫সদস্য বিশিষ্ট একটি অডিট কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত কমিটি কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) দায়িত্ব পালনকালে আমার বিরুদ্ধে ৪৩লাখ টাকার একটি অভিযোগ তুলেন। আমি প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টপত্রসহ ওই অভিযোগের যথাযথভাবে জবাব প্রদান করি। এরপর থেকে ষড়যন্ত্রের আশ্রয় নিয়ে মানহানি ও সামাজিকভাবে হেয় করতে আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে একেক সময় একেক রকমের টাকার সংখ্যা উল্লেখ করে বিভিন্ন সংবাদপত্র ও সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। সর্ব প্রথম ১ কোটি ৭৪ লাখ টাকার একটি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ লিপিবদ্ধ করে শেয়ার হোল্ডারদের মানসিকতাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে তাদের মাঝে আমার বিরুদ্ধে একটি অনিয়ম সংক্রান্ত চিঠি বিতরণ করে। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৭/১০/২০২০ইং অনলাইন, ০৫/১১/২০২০ইং দৈনিক কক্সবাজার, ০৭/১১/২০২১ইং দৈনিক কক্সবাজার’৭১ পত্রিকায় ১ কোটি ৬৭লাখ টাকার সংখ্যা উল্লেখ করে সংবাদ প্রকাশ করে। এরপরের দিন ০৮/১১/২০২০ইং তারিখে দৈনিক কক্সবাজার পত্রিকায় ওই সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছি। ২০/০২/২০২১ইং তারিখে আরেকটি অনলাইন পত্রিকায় সাড়ে ৩কোটি টাকার নতুন সংখ্যায় সংবাদ প্রচার করে। এতেও কোম্পানির চেয়ারম্যান মানিক গংয়ের অপতৎপর থেমে নেই।

সর্বশেষ প্রতিবাদের শুরুতেই উল্লেখিত তারিখে প্রকাশিত সংবাদের ভেতরে ৬ কোটি ৫৬লাখ ৫২হাজার টাকার একটি অভিযোগ প্রমানিত হওয়ার কথা উত্থাপন করা হয়। এর বিপরীতে আমার দ্বারা ৩ কোটি ২৮লাখ ২৬হাজার টাকার একটি চেক প্রদান করি বলিয়া উল্লেখ করেন। আমি এ ধরনের কোন চেক প্রদান করিনি। মূল বিষয় হল- ২৫/০১/২০১৯ইং হতে ২৮/০১/২০১৯ইং মধ্যে উক্ত চেকটি চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী মানিক তার অনুগত পরিচালক সোহরাব মোস্তফার সহযোগিতায় আমার অনুপস্থিতিতে ড্রয়ার থেকে চুরি করেন। চুরি হয়ে যাওয়া চেকটির বিষয়ে ব্যাংকের ম্যানেজার সাহেবকে মৌখিকভাবে অবহিত করি। তিনি এ সংক্রান্ত থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (জিডি) করার পরামর্শ দেন। উক্ত চেক চুরি হয়ে যাওয়ার পর ২৮/০১/২০১৯ইং তারিখ হতে ১১/০৪/২০২১ইং দীর্ঘ দুই বছর ৩মাস পর্যন্ত আমি উক্ত একাউন্টে ৮৩টি চেক ব্যবহার করে টাকা উত্তোলন করেছি।

কিন্তু দীর্ঘ আড়াই বছর পর ১১/০৪/২০২১ইং ওই চুরি হয়ে যাওয়া চেকটি চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান চৌধুরী মানিক টাকা অংক, কথায় ও তারিখ নিজ হাতে লিখে আমার দস্তখত সুপার কম্পোজের মাধ্যমে জাল-জালিয়াত করে নগদায়নের জন্য ব্যাংকে জমা দেয়। এমন জালিয়াতির বিষয়টি আমার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারে এসএমএস আসে। এতে আমি নিশ্চিত হই চুরি যাওয়া চেকটি আমার বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান মানিকই ষড়যন্ত্রমূলকভাবে চুরির উদ্দেশ্যে সরিয়ে ফেলেছেন। উক্ত চুরি হয়ে যাওয়া চেকটি জাল-জালিয়াতপূর্বক ব্যাংকে উপস্থাপনের বিরুদ্ধে আমি চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সি আর ৬৫২/২০২১ইং নাম্বার মামলা দায়ের করি। যা বর্তমানে তদন্তাধীন আছে। এভাবে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে সংবাদমাধ্যমে কোন না কোন দিন অনাকাংখিত খবর প্রচার করে আসছে। আমি আবারো এর জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী ::

মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, সাবেক এমডি

ম্যানগ্রোভ এসেটস লিঃ, চকরিয়া।

পাঠকের মতামত: