ঢাকা,রোববার, ৭ মার্চ ২০২১

কুতুবদিয়ার ট্রলার ডুবি: নিখোঁজ ৩

নিজস্ব প্রতিনিধি. কুতুবদিয়া ::   কর্ণফুলীর মোহনায় বঙ্গোপসাগরে একটি ট্যাংকার জাহাজের সাথে সংঘর্ষে দেড় কোটি টাকার মালামালসহ একটি কার্গোবোট ডুবে ৩ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে। সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) ভোর ৪ টায় আনোয়ারার পারকি সমুদ্র সৈকতের পশ্চিমে কর্ণফুলী নদীর মোহনার ৫নং বয়ার পাশে ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের দুটি দল উদ্ধার তৎপরতা চালালেও এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত নিখোঁজদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে ডুবে যাওয়া বোটটি উদ্ধার করে বন্দরের প্রবেশ মুখ থেকে সরানোর কাজ চলছে বলে জানান কোস্টগার্ড।
নিখোঁজ বোটের মালিক কুতুবদিয়ার বাসিন্দা জাকারিয়া সওদাগর জানায়, সোমবার ভোরে চট্টগ্রামের চাক্তাই থেকে মালামাল নিয়ে কুতুবদিয়া যাওয়ার পথে ঘনকুয়াশার কারণে পারকি সমুদ্র সৈকতের পশ্চিমে কর্ণফুলীর মোহনায় বঙ্গোপসাগরে ৫নং বয়ার পাশে একটি টেঙ্গার জাহাজের সাথে সংঘর্ষে আমার মালিকানাধীন বোটটি দেড় কোটি টাকার মালামালসহ ডুবে যায়। এ সময় বোটের ১২ জন মাঝি-মাল্লার মধ্যে ৯ জনকে উদ্ধার করা গেলেও কুতুবদিয়ার ড্রাইভার দক্ষিণ ধূরুং ইউনিয়নের নয়া পাড়ার মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে সাজুল করিম (৩৪), কৈয়ারবিল ইউনিয়নের নাজির পাড়ার মৃত বদিউল আলমের ছেলে সবজি ব্যবসায়ী আবুল কাশেম (৫৮) তার ফুফাত ভাই একই ইউনিয়নের আনুহাজীর পাড়া মৃত: উজ্জত আলীর ছেলে সবজী ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হোছাইন (৫৫) এখনো নিখোঁজ রয়েছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করেন কোস্টগার্ড পূর্বজোনের স্টাফ অফিসার (অপারেশন) হাবিবুর রহমান জানান, ঘনকুয়াশার কারণে সোমবার ভোরে কর্ণফুলী নদীর মোহনায় একটি ট্যাংকার জাহাজের সাথে মালবাহী বোটে সংঘর্ষে একটি বোট ডুবে যায়। এসময় বোটে থাকা ১২ জন নাবিকের মধ্যে ৯ জনকে উদ্ধার করা গেলেও ৩ জন এখনো নিখোঁজ রয়েছে। এ ঘটনায় বাংলাদেশ নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডের দুটি দল উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ডুবে যাওয়া ট্রলারটি সরিয়ে নেওয়া জন্য সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত চেষ্টা করেও সফল হওয়া যায়নি। মঙ্গলবার সকালে আবারও উদ্ধার কাজ শুরু করা হবে বলে জানান কোস্টগার্ড পূর্বজোনের স্টাফ অফিসার (অপারেশন) হাবিবুর রহমান।
বড়ঘোপ বাজারের ব্যবসায়ীরা নিয়মিত ট্রলার দিয়ে মালামাল পরিবহণ করে থাকে। তার ধারাবাহিকতায় সোমবার সকারে ব্যবসায়ীদের কাছে তাদে পণ্য আসার কথা, রবিবার ভোররাতে নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটে।
বড়ঘোপ বাজারের অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিঃ এর পরিবেশক মেসার্স কাশেম ষ্টোরের স্বত্বাধিকারী নাছির উদ্দিন জানান, আমরা ব্যবসায়িরা ট্রলারে নিয়মিত পন্য আনা নেওয়া করি, ডুবে যাওয়া ট্রলারে আমার ৫ লক্ষ টাকার বিস্কুট ছিল।
স্থানীয় ব্যবসায়ীর পাশাপাশি আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারী কুতুব শরীফ দরবার উপলক্ষে ব্যবসা করার জন্য অনেক মৌসুমী ব্যবসায়ীর পণ্য ছিল বলে জানা গেছে। অনেক ব্যবসায়ী মালামাল হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছে।
নিখোঁজ তিনজনের পবিবারে চলছে আহাজারী, নিখোঁজ সবজি ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হোছাইনের বড় ভাই ফল ব্যবসায়ী মো: ইব্রাহিম জানান,তার ছোট ভাই নিয়মিত সবজি ক্রয়ের জন্য চট্টগ্রাম শহরে আসা যাওয়া করে, ট্রলার ডুবির ঘটনায় তার ভাইয়ের এখনও কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি, আহাজারী কন্ঠে তার ভাইকে উদ্ধারে প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেন।

পাঠকের মতামত: