Home » পার্বত্য জেলা » আলীকদমে ‘তিনখুনের সাথে জড়িত খুনিরা কোনভাবেই পার পাবে না’ -বীর বাহাদুর

আলীকদমে ‘তিনখুনের সাথে জড়িত খুনিরা কোনভাবেই পার পাবে না’ -বীর বাহাদুর

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

dddrআলীকদম (বান্দরবান) প্রতিনিধি ::

বান্দরবান জেলার আলীকদম-থানচি সড়কে তিন ব্যবসায়ী হত্যার ঘটনায় নিহতের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সমবেদনা ও নগদ অর্থ সহায়তা দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি। পাশাপাশি এ ঘটনার পরপরই সৃষ্ট অগ্নিকা-ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা এগারটার দিকে তিনি বান্দরবান জেলা সদর থেকে আলীকদম এসে সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত গরু ব্যবসায়ী আবুবকর, নুরুল আফসার ও শাহাব উদ্দিনের বাড়িতে যান। এ সময় নিহতদের স্বজনদের প্রতি তিনি সমবেদনা জানান।

প্রতিমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন ৬৯ পদাতিক ব্রিগেড এর কমান্ডার ও বান্দরবান সেনা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান পিএসসি, বান্দরবান জেলা প্রশাসক দীলিপ কুমার বণিক, আলীকদম সেনা জোনের জোন কমান্ডার কামন্ডার লেঃ কর্ণেল মোঃ সরোয়ার হোসেন, পার্বত্য চট্ট্রগাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কাজল কান্তি দাশ, আলীকদম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল-আমিন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য থোয়াইচাহ্লা মার্মা, আলীকদম উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, মোজাম্মেল হক প্রমূখ।

মন্ত্রী নিহত তিন ব্যবসায়ীর পরিবারকে ব্যক্তিগতভাবে নগদ ৫০ হাজার টাকা এবং অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারকে ৩০ হাজার টাকা করে অনুদান প্রদান করেন। একই সময় জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবার প্রতি এক লক্ষ টাকা এবং অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার প্রতি ৩০ হাজার টাকা করে প্রদান করেন। এছাড়াও পার্বত্য চট্ট্রগাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কাজল কান্তি দাশ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে ১০ হাজার টাকা এবং বান্দরবান সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল কুদ্দুস ৫ হাজার টাকা প্রদান করেন।

এদিকে, আলীকদম উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দুপুরে জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিকের সভাপতিত্বে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বীর বাহাদুর এমপি। এ সময় তিনি বলেন, সন্ত্রাসীদের কোন জাতী-গোষ্ঠী নেই। খুনি যে বা যাহারাই হোক তাদেরকে কোনভাবেই ছাড় দেওয়া হবেনা। এমনিক আওয়ামীলীগের কোন নেতাকর্মীও যদি এ ঘটনায় ইন্ধন দেয়, তাদেরকেও গ্রেফতার করা হবে। খুনিরা যদি পাতালের নিচে গিয়েও পালায় সেখান থেকে তাদেরকে তুলে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি ঘটে যাওয়া ঘটনায় সেনাবাহিনী, পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের প্রশংসা করে বলে, স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টিকে দক্ষতার সাথে মোকাবেলা করেছে। সেনা বাহিনী, পুলিশ ও প্রশাসন আপনাদের পাশে থাকবে। আমি বিশ্বাস করি আপনাদের দ্বারাই আলীকদমের সম্প্রীতি সুরক্ষা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চকরিয়ার ৮৩৭ জেলে পরিবার এখনো বরাদ্দের চাল পায়নি

It's only fair to share...27400ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া :: ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা ইতোমধ্যে শেষ হতে ...