ঢাকা,শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১

চকরিয়ায় ছাত্রলীগ নেতা সোহেল হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: চকরিয়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সোহেল রানা হত্যার প্রতিবাদ ও খুনীদের গ্রেপ্তারপূর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে চকরিয়া পৌরশহরে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে এ বিক্ষোভ মিছিল করে পৌরসভার সর্বস্তরের এলাকাবাসী। বিক্ষোভ মিছিলটি মগবাজার থেকে শুরু হয়ে পৌরশহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

গত রোববার রাতে পৌরসভার ভরামুহুরী এলাকায় সোহেল রানাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, মিজানুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শফিউল আজম, চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেফায়েতুল কবির বাপ্পি, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন মিটু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য তারেকুল ইসলাম রাহিত, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আদনান রামিম, মাতামুহুরী থানা ছাত্রলীগের সভাপতি হুমায়ন কবির, সাধারণ সম্পাদক মিজবাহ উদ্দিন বেলাল, পৌরসভা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল আনাছ, ছাত্রলীগ নেতা আসিফুল হাসনাত রাফি, ইমরুল জাওয়াদ, সৌরভ মাহাবি, মোহাম্মদ সেলিম, আবদুল আজিজ আজাদ, সরওয়ার ইমরান, আবির মাহমুদ আলম, পৌর ছাত্রলীগ নেতা রাজু দাশ, জায়েদ হাসান নয়ন, ছাত্রলীগ নেতা সাইমন, শান্ত, বুলেট, শাহেদ করিম সামির প্রমুখ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নিহত সোহেলের এলাকাবাসীসহ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী। স্থানীয়রা সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সোহেল হত্যার দ্রুত বিচার দাবি করেন এবং হত্যাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন।

বিক্ষোভ শেষে থানা মোড় চত্বরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন মিটু। তিনি প্রশাসনকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, ‘সোহেল হত্যার ২৪ঘন্টা পার হলেও প্রশাসন হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি। দ্রুত আসামীদের গ্রেপ্তারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। অন্যথায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এই হত্যার প্রতিশোধ হিসেবে কঠিনভাবে জবাব দিতে বাধ্য হবে।’

জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য তারেকুল ইসলাম রাহিত বলেন,‘ সন্ত্রাসীরা রাতের আধাঁরে পিটিয়ে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সোহেল রানাকে হত্যা করেছে। প্রশাসন সোহেল হত্যা জড়িতদের এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি। সোহেল রানা হত্যার সঙ্গে যারা জড়িত রয়েছে তাদের অতি দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে। তাদের গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত ছাত্রলীগ রাজপথে থাকবে।’

এসময় বক্তারা অবিলম্বে ছাত্রলীগ নেতা হত্যার সঙ্গে জড়িত সকলকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবি জানান।

পাঠকের মতামত: