ঢাকা,শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, সাতকানিয়ার ছাত্রলীগ নেতা কক্সবাজারে ধরা!

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ছাত্রলীগ নেতার পরিচয়ে বিয়ের প্রলোভনে যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগে কারাগারে গেলেন মো. মোজাম্মেল নামে এক যুবক। তাকে কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) চকবাজার থানার একটি ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। কথিত ছাত্রলীগ নেতা মো. মোজাম্মেল সাতকানিয়া উপজেলার দক্ষিন ঢেমশা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের কবির ড্রাইভারের বাড়ির মৌলানা ছৈয়দুল হকের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার বিভিন্ন নেতার সঙ্গে ছবি তুলে নিজেকে ছাত্রলীগ নেতা দাবি করতো বলে জানান ভুক্তভোগীর পরিবার।

দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক মামুনুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘সাতকানিয়া-লোহাগাড়া এলাকায় মোজাম্মেল নামে কেউ ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত নেই।’

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার যুবতী শান্তাকে (ছদ্মনাম) প্রেমের ফাঁদে ফেলে মোজাম্মেল। এরপর বিয়ের প্রলোভন দিয়ে কক্সবাজারে এক বান্ধবীর বাসায় রেখে টানা ১৫ দিন ধর্ষণ করেন। পরে মেয়েটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম নগরীর দামপাড়ার ছলিমা নিবাসে নিয়ে ধর্ষণ করার সময় বিষয়টি এলাকাবাসী টের পান।

এ সময় স্থানীয় লোকজন মোজাম্মেলকে ধাওয়া করলে সে পালিয়ে যায়। পরে মেয়েটি বাদি হয়ে মোজাম্মেলের বিরুদ্ধে চকবাজার থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করলে ওই মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠান।

সিএমপির চকবাজার থানার পুলিশ জানান, ‘প্রেমের ফাঁদে ফেলে এর আগেও মোজাম্মেল মেয়েটিকে কক্সবাজারে নিয়ে গিয়ে বেশ কয়েকবার ধর্ষন করেছে অভিযোগ রয়েছে। মূলতই মোজাম্মেল কক্সবাজারে ব্যবসা করেন।’

এ বিষয়ে বাদির আইনজীবী মো. ইসহাক বলেন, ‘বিয়ের প্রলোভনে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়ে মোজাম্মেল মেয়েটির ইচ্ছার বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণ করেছেন। ভুক্তিভোগী মেয়েটি চকবাজার থানায় মামলা দায়ের করার পর তাকে গ্রেপ্তার করে। বিজ্ঞ আদালত জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছে।’

 

পাঠকের মতামত: