ঢাকা,শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

সম্মিলিত প্রয়াসে মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও নারী নির্যাতন নির্মূল করা সম্ভব

এম. এ আজিজ রাসেল ::
‘শুধু অভিযান চালিয়ে, মামলা দিয়ে ও গ্রেপ্তার করে মাদক, মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও নারী নির্যাতন নির্মূল করা সম্ভব নয়। এর জন্য প্রয়োজন সর্বস্তরের জনসাধারণের সম্মিলিত প্রয়াস। জনতার সহযোগিতা ছাড়া উন্নয়ন ও অপরাধ দমন করা সম্ভব না’।
শনিবার (১৭ অক্টোবর) ট্রাফিক পুলিশ মাঠে কক্সবাজার সদর থানার ৩নং বিট (পৌরসভা) আয়োজিত জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও নারী নির্যাতন বিরোধী আলোচনা এবং মতবিনিময় সভায় বক্তারা এ কথা বলেন।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পৃথিবীর এক অবাক বিস্ময়। এ উন্নয়নের ম্যাজিশিয়ান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হলো, কিছু কিছু অমানুষ এ উন্নয়নের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তারা আমাদের মাদক দিয়ে, সন্ত্রাস দিয়ে, জঙ্গি দিয়ে ফাঁসিয়ে দিতে চাইছে। তারা চায় না এ দেশের উন্নয়ন হোক। এই অমানুষরাই নারীদের সম্মান নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। তিনি চান, ধর্ষণের দায়ে যেন কারও মৃত্যুদÐ না হয়। সেক্ষেত্রে নারী-পুরুষ উভয়কে সচেতন হতে হবে। হতে হবে ফুলের মতো পবিত্র।’
সভাপতির বক্তব্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘জনগণের সহায়তায় পুলিশ ইতিমধ্যে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছে, বর্তমানে আমাদের টার্গেট মাদক, সন্ত্রাসী ও নারী নির্যাতন নির্মূল করা। আমরা অপরাধ ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছি। এ যুদ্ধে আমরা জয়ী হতে চাই। এ জন্য কক্সবাজারের সর্বস্তরের মানুষের সাহায্য চাই। যাতে সুন্দর ও সমৃদ্ধ একটি কক্সবাজার জেলা সবাইকে উপহার হিসেবে দিতে পারি।’
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) পংকজ বড়ুয়া বলেন, ‘পুলিশ জনগণের বন্ধু। তাই কোন সেবা পেতে বন্ধুকে হয়রানী হতে হবে না। ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন টেকসই শান্তি। আর টেকসই শান্তি আসে টেকসই নিরাপত্তা থেকে। পুলিশ জনগণকে টেকসই নিরাপত্তা দিতে কাজ করে যাচ্ছে।’
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, ‘জনগণের সম্পৃক্ততা ছাড়া সমাজ থেকে অপরাধ নির্মূল করা সম্ভব নয়। পাশের ঘরে আগুন লাগলে আমাদেরও নিরাপত্তা বিঘিœত হবে। আমরা যদি একজন ব্যক্তিকে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ থেকে সরিয়ে আনতে পারি, তবে সেটা হবে সত্যিকারের দেশপ্রেমের কাজ। থানায় নির্ধিদ্বায় সেবা নিতে আসবেন। কারও দ্বারা হয়রানী বা প্রতারণার শিকার হলে জানাবেন, সাথে সাথে অ্যাকশন নেয়া হবে। কারণ পুলিশ আপনাদের সেবা দিতে বদ্ধপরিকর।’
কক্সবাজার সদর থানার ৩ নং বিটের (পৌরসভা) দায়িত্বপ্রাপ্ত ইনচার্জ এসআই দস্তগীর হোসাইনের সঞ্চালনায় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কক্সবাজার পৌরসভার প্যানেল মেয়র-৩ শাহেনা আকতার পাখি, পৌর কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি মিজানুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার উদ্দিন পুতু।
পরে অতিথিরা কক্সবাজার সদর থানার ৩ নং বিটের (পৌরসভা) কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

পাঠকের মতামত: