Home » পার্বত্য জেলা » লামায় গলায় ফাঁস দিয়ে যুবতীর মৃত্যু

লামায় গলায় ফাঁস দিয়ে যুবতীর মৃত্যু

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

লামা সংবাদদাতা ::  বান্দরবানের লামায় পারিবারিক কলহের জের ধরে ফাঁসিতে ঝুলে বিলকিস আক্তার (২১) নামে এক যুবতীর মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (১২ জুলাই) সাড়ে ১১টায় লামা খালের পূর্ব পাশে মতির বাগানে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে।

সে উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মৃত মো. শহীদুল ইসলাম কারবারীর মেয়ে। মেয়েটি লামা সরকারি মাতামুহুরী কলেজের বিএ ২য় বর্ষের ছাত্রী।

এদিকে একই ঘটনার জের ধরে গতরাত সাড়ে ৮টায় নিহতের বড় ভাই হাবিবুর রহমানও বাড়ির পিছনে গাছের সাথে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। ফাঁসির রশি বাধা গাছের ডালটি দুর্বল হওয়ায় সে ডাল ভেঙ্গে পড়ে যায়।

নিহতের ছোট ভাই হায়দার হোসেন সাদ্দাম বলেন, রবিবার (১২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় নিহতের বাড়ি থেকে পৌনে ১ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে লামা খালের পূর্ব পাশে মতির বাগানে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। সকাল থেকে আমার বোনকে খুঁজে পাচ্ছিলাম না। মা বলেন বোনটি নানার বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছে। অনেক খোঁজাখুঁজির পরে আমার বোন বিলকিসকে পার্শ্ববর্তী মতির বাগানে গামারী গাছে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁসিতে ঝুলে থাকতে দেখি। পরে পার্শ্ববর্তী মো. ইব্রাহিম প্রকাশ লাদেনের সহায়তায় ঝুলন্ত অবস্থা থেকে বোনের লাশটি উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসি।

নিহতের মা হাওয়া নুর বলেন, শনিবার দিবাগত-রাত আমার বড় ছেলের বউ সুমি আক্তারের সাথে আমার মেয়ে বিলকিস আক্তারের ঝগড়া হয়। ছেলের বউ সুমি আমার মেয়েকে গালমন্দ করে। সেই অপমানের ক্ষোভে গলায় ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করেছে বলে আমরা ধারণা করছি।

নিহতের চাচা মো. পিন্টু বলেন, গতরাতে স্ত্রীর সাথে ঝগড়া করে আমার ভাতিজা হাবিবুর রহমানও বাড়ির পিছনে গাছে উঠে ফাঁস খেয়ে আত্মহত্যা করতে যায়। ফাঁসির রশি বাধা গাছের ডালটি দুর্বল হওয়া সে ডাল ভেঙ্গে পড়ে যায় এবং বুকে ব্যথা পায়। শব্দ শুনে পরিবারের লোকজন বের হয়ে হাবিব কে ঘরে নিয়ে আসে।

এদিকে খবর পাওয়ামাত্র সঙ্গীয় পুলিশ সদস্য নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান চকরিয়া নিউজকে বলেন, ‘লাশের প্রাথমিক সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এই বিষয়ে লামা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়। ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাবিবুর রহমানের স্ত্রী সুমি আক্তারকে থানা নিয়ে আসা হয়েছে। ’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চকরিয়ায় শাহ আজমত উল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখলের অভিযোগ, উত্তেজনা

It's only fair to share...000 নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া ::  কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের পুর্ব ...

খালেদার ভুয়া জন্মদিন পালনের জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিত -তথ্যমন্ত্রী

It's only fair to share...000 অনলাইন ডেস্ক :: তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ...