ঢাকা,রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

চকরিয়ায় সবধরণের দোকানপাট বন্ধ, খোলা থাকবে ঔষধ, মুদির ও খাদ্যদ্রব্য দোকান

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া ::  মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে এবার কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভা এলাকায় পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সবধরণের দোকানপাট বন্ধ থাকবে বলে ঘোষনা দিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন। তবে সর্বস্তরের মানুষের দৈনন্দিন জীবনে জরুরী প্রয়োজন থাকায় প্রতিটি জনপদে খোলা থাকবে ঔষধ, মুদির খাদ্যদ্রব্য দোকান। মঙ্গলবার চকরিয়া পৌরশহরের বাণিজ্যিক নগরীতে সচেতনতামুলক ক্যাম্পেইনে চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান এ ঘোষনা দিয়েছেন। এসময় চকরিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর রেজাউল করিম, কৃষকলীগ নেতা সুশাল কান্তি সুশীল, আওয়ামীলীগ নেতা আমির হোসেন আমু, ব্যবসায়ী নেতা আবদুল হামিদ ছাড়াও স্থানীয় সর্বস্তরের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সপ্তাহকাল আগে থেকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিত্যপণ্যের বাজার মনিটরিং কার্যক্রম চালু করেছে চকরিয়া থানা পুলিশ। সহকারি পুলিশ সুপার (চকরিয়া সার্কেল) কাজী মতিউল ইসলাম, চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান এবং ওসি তদন্ত একেএম সফিকুল আলম চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশের একাধিক ইউনিট বর্তমানে করোনা ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধে চকরিয়া উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকার প্রতিটি জনপদে মনিটরিং কার্যক্রম শুরু করেছেন।

বিশেষ করে চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় সদ্য বিদেশ হতে আগত ব্যক্তি ও সন্দেহভাজন আক্রান্তদের হোম কোয়ারেন্টিনে অবস্থান নিশ্চিত করতে এবং করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে সবধরণের গুজব ঠেকাতে পুলিশের এসব ইউনিট কঠোর নজরদারিতে রয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.হাবিবুর রহমান বলেন, করোনা সংক্রমণকে কেন্দ্র করে চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভার প্রতিটি জনপদে যাতে কেউ অসৎ উদ্দেশ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য অবৈধভাবে মজুদ করতে না পারে, পন্যবিক্রিতে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নিতে না পারে নেইজন্য পুলিশ নজরদারী চালাচ্ছেন।

একইসঙ্গে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে চকরিয়া উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকায় জনসচেতনতামুলক ব্যাপক প্রচারনা চালাচ্ছেন পুলিশের প্রতিটি ইউনিট। ইতোমধ্যে চকরিয়া পৌরশহরের বিভিন্ন জনপদে বাজার মনিটরিং করেছেন পুলিশ। সাথে প্রতিটি এলাকায় মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে।

 

পাঠকের মতামত: