Home » কক্সবাজার » নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে সেন্টমার্টিনে পর্যটকের ঢল

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে সেন্টমার্টিনে পর্যটকের ঢল

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

জসিম মাহমুদ, টেকনাফ ::  বাংলাদেশের মানচিত্রে সর্বদক্ষিণে অবস্থিত কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপনে পর্যটকের ঢল নেমেছে। পুরনো বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ করতে এ যেন পর্যটকের মেলায় পরিণত হয়েছে।
এটি নিয়ে সরকারিভাবে কোনো ধরনের আয়োজন না থাকলেও বিদায় বরণ কে ঘিরে পুলিশ, বিজিবি, কোস্টগার্ড ও স্থানীয় প্রশাসনের সার্বিক প্রস্তুতি ও রয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।
গত কয়েক দিন ধরে দেশি-বিদেশি পর্যটক আসছেন। টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে বর্তমানে পর্যটক পরিবহন ৮টি জাহাজ রয়েছে। এসব জাহাজের টিকেট অগ্রিম বুকিং হয়েছে ২ সপ্তাহ আগে।
সেন্ট মার্টিন হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি মুজিবুর রহমান জানান, নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে সেন্ট মার্টিনে পর্যটকদের আগমন বৃদ্ধি পেয়েছে। হোটেল-মোটেল, কটেজ শতাধিক আবাসিক হোটেলের সব কক্ষ অগ্রিম বুকিং হয়ে গেছে।
সেন্ট মার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমেদ বলেন, সেন্ট মার্টিন দ্বীপে বর্ষ বিদায়ে বিশেষ কোন আয়োজন নেই। তবে গত বছরের তুলনায় এবার দ্বীপে পর্যটকের আগমন বেড়েছে। পর্যটকরা যাতে হয়রানির শিকার না হয়, সে বিষয়ে নজরদারি রাখা হচ্ছে।
সেন্টমার্টিন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ফজলু আলম জানান, নতুন বছরের আগমন উপলক্ষে সেন্টমার্টিনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিভিন্ন স্থানে পুলিশ মোতায়েন থাকবে।
গলাকাটা বাণিজ্য: সেন্টমার্টিন দ্বীপে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের সুবিধার জন্য ১০৬ টি হোটেল রয়েছে। এসব হোটেল-মোটেল ও কটেজগুলোতে ৫০০ থেকে ১৩ হাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।
স্থানীয় ও পর্যটকদের অভিযোগ, থ্রী স্টার, ফোর স্টার, ফাইভ স্টার হোটেলের রুম ভাড়া একটি সীমাবদ্ধতা থাকে। তবে সেন্টমার্টিন দ্বীপে সেটির কোন কিছু নেই। যে যার যার মতো করে পর্যটকদের কাছ থেকে মন গড়া ভাড়া আদায় করছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসন এগিয়ে আসলে পর্যটকেরা এসব হয়রানি থেকে পরিত্রাণ পাবে।
জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও সাইফুল ইসলাম জানান, দ্বীপে পর্যটকদের আগমন বৃদ্ধি পেয়েছে। সেন্টমার্টিনগামী পযর্টক জাহাজগুলো যেন অতিরিক্ত যাত্রী বহন করতে না পারে, সেদিকে কঠোরভাবে তদারকি করা হচ্ছে। পাশাপাশি পর্যটকদের দ্বীপ ভ্রমণে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

চকরিয়ায় শাহ আজমত উল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখলের অভিযোগ, উত্তেজনা

It's only fair to share...000 নিজস্ব প্রতিবেদক, চকরিয়া ::  কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের পুর্ব ...

করোনায় আরো ৩০ মৃত্যু, শনাক্ত ১,৩৫৬

It's only fair to share...000 নিউজ ডেস্ক :: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আরো ...