Home » চট্টগ্রাম » এইডস রোগী বাড়ছে চট্টগ্রামে, আজ বিশ্ব এইডস দিবস

এইডস রোগী বাড়ছে চট্টগ্রামে, আজ বিশ্ব এইডস দিবস

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

চকরিয়া নিউজ ডেস্ক ::  বিশ্ব এইডস দিবস আজ। এইচআইভি এইডস সম্পর্কে প্রচার চালাতে প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী পালিত হয় এই দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘এইডস নির্মূলে প্রয়োজন, জনগণের অংশগ্রহণ।’ এর মধ্যে জানা গেল, চট্টগ্রাম অঞ্চলে প্রাণঘাতী এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এদের অধিকাংশই মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী ও তাদের স্বজন।

বিডিনিউজ সূত্রে জানা গেছে, চিকিৎকরা জানিয়েছেন, প্রবাসে অবস্থানরতদের ঝুঁকিপূর্ণ যৌন সম্পর্ক বিষয়ে যথাযথ জ্ঞান না থাকা এবং বিদেশে যাওয়ার আগে এ বিষয়ে পর্যাপ্ত কাউন্সেলিং না হওয়ায় এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। বিদেশে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে দেশে ফেরা ব্যক্তিদের মাধ্যমে তাদের স্ত্রী ও সন্তানরাও এতে আক্রান্ত হচ্ছেন।

এইচআইভি ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তিদের নিয়ে কাজ করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের অ্যান্টি রেট্রো ভাইরাল থেরাপি (এআরটি) সেন্টার। এ সেন্টারের তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রাম অঞ্চলে এ বছর নতুন করে এইচআইভি ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭১ জন। এর মধ্যে ৪৪ জন পুরুষ, ১৮ জন নারী এবং নয়টি শিশু। এই ১১ মাসে এই রোগে মারা গেছেন ১০ জন। তাদের মধ্যে পাঁচজন পুরুষ, চারজন নারী ও একটি শিশু। এছাড়া নতুনদের নিয়ে এ বছর চট্টগ্রাম অঞ্চলে এইচআইভি আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা ৪২১ জন। এদের মধ্যে তাদের কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন ৩২৬ জন।

২০১৮ সালে চট্টগ্রাম অঞ্চলে নতুন করে এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪৫ জন। ওই বছর সারা দেশে নতুন করে এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮৭৯ জন।

১৯৮৯ সালে বাংলাদেশে প্রথম এইডস রোগী শনাক্তের পর থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ছয় হাজার ৪৫৫ জন এতে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন এক হাজার ৭২ জন। এর মধ্যে ২০১৮ সালেই মৃত্যু হয়েছে ১৪৮ জনের।

চমেক হাসপাতালের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের চিকিৎসক এবং এআরটি সেন্টারের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডা. সঞ্জয় প্রসাদ দাশ বলেন, চট্টগ্রামের এইচআইভি ভাইরাস আক্রান্তদের একটি বড় অংশ প্রবাসী। এদের অধিকাংশই মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ছিলেন। অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক বা অন্যান্য কারণে তারা এ ভাইরাসের জীবাণু বহন করে আনছেন, এদের মাধ্যমেই তাদের স্ত্রীর মধ্যে সংক্রমিত হচ্ছে। স্ত্রী এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে সন্তানের মধ্যে সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারে অথবা মায়ের বুকের দুধের মাধ্যমেও এটি সংক্রমিত হতে পারে।

এইডস নিয়ে কাজ করা এই হাসপাতালের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের সাবেক প্রধান অধ্যাপক এ কিউ এম সিরাজুল ইসলামও প্রবাসীদের মধ্যে এইচআইভি আক্রান্তের হার বেশি পাওয়ার কথা জানান। তিনি বলেন, শুধু হাসপাতালে নয়, ব্যক্তিগতভাবে এইডসের চিকিৎসা নেওয়া রোগীদের মধ্যেও প্রবাসীর সংখ্যা বেশি। প্রবাসীরা বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে যাওয়া কর্মীরা দীর্ঘদিন তাদের পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন থাকে। তারা বিদেশে বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ যৌন আচরণে জড়িয়ে পড়ে। সেঙুয়াল প্রটেকশন বা এইচআইভি ভাইরাস সম্পর্কিত ধারণা তাদের মধ্যে না থাকায় এ ধরনের কর্মকাণ্ডে যুক্ত হয়ে নিজের অজান্তেই এ ভাইরাসের জীবাণু বহন করে।

মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে যাওয়ার আগে তাদের এইচআইভি ভাইরাস ও এইডস নিয়ে কাউন্সেলিং করা গেলে আক্রান্ত হওয়ার হার অনেক কমে আসবে মনে করেন ডা. সিরাজুল ইসলাম। এছাড়া দীর্ঘদিন বিদেশে অবস্থান না করে নির্দিষ্ট সময় পরপর দেশে এসে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে থাকার মানসিকতা তৈরি করতে পারলেও এই রোগে আক্রান্তের হার কমবে বলে মনে করেন তিনি।
তিনি বলেন, সামপ্রতিক বছরগুলোতে এ ভাইরাস সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা অনেক বেড়েছে। আক্রান্ত রোগীরাও আগের চেয়ে বেশি সংখ্যায় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হচ্ছেন এবং এ রোগের প্রতিষেধক নিচ্ছেন।

চট্টগ্রাম মেডিকেলের প্রিভেনশন অব মাদার টু চাইল্ড ট্রান্সমিশন (পিএমটিসিটি) প্রোগ্রামের আওতায় গর্ভবতী মায়েদের এইচআইভি ভাইরাস শনাক্তকরণের পরীক্ষা করা হয়। সমপ্রতি চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল এবং সিটি করপোরেশন পরিচালিত মেমন মাতৃসদন হাসপাতালেও এ কর্মসূচি চালু হয়েছে।

মা থেকে শিশুতে এইচআইভি সংক্রমণ প্রতিরোধ কার্যক্রমের চট্টগ্রামের ম্যানেজার আলী হোসেন বলেন, পরীক্ষার মাধ্যমে এইচআইভি আক্রান্ত রোগী যেমন শনাক্ত করা যাচ্ছে, তেমনি সচেতনতাও বাড়ছে। এইডস নিয়ে সচেতনতা আরো বাড়াতে বিশেষ করে মা থেকে সন্তানদের মধ্যে সংক্রমণ রোধের জন্য চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙগুলোতেও এ কার্যক্রম চালু করা জরুরি।

এদিকে, ১৯৮৮ সালে আন্তর্জাতিক এইডস সোসাইটি গঠনের পর থেকেই ১ ডিসেম্বরকে বিশ্ব এইডস দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। দিবসটির মধ্যদিয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এইডসের প্রতীক হিসেবে নির্ধারণ করা হয় লালফিতা বা রিবন। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বাণীতে বলেন, প্রতিটি এইচআইভি/এইডস আক্রান্ত ব্যক্তির স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে যুগান্তকারী পদক্ষেপসমূহ গ্রহণ করা হয়েছে। ফলে সম্পূর্ণ সরকারি ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধানে ১০টি সরকারি হাসপাতাল থেকে আক্রান্ত ব্যক্তিদের বিনামূল্যে এইডসের চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদান করা হচ্ছে। অদূর ভবিষ্যতে এটি আরো সমপ্রসারিত হবে।

এইডস দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মা ও শিশু ও জেনারেল হাসপাতাল বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। হাসপাতালের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের উদ্যোগে দুপুর ১২টায় র‌্যালি, সাড়ে ১২টায় ৩য় তলায় লেকচার গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত হবে সেমিনার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কক্সবাজারে প্রথম ৮ বল পুল টুর্নামেন্ট শুরু হচ্ছে শুক্রবার

It's only fair to share...000ক্রীড়া প্রতিবেদক: কক্সবাজারের ইতিহাসে এই প্রথম বিজয় দিবস ৮ বল পুল ...

error: Content is protected !!