Home » কক্সবাজার » সেন্টমার্টিনে শিক্ষক কর্তৃক ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

সেন্টমার্টিনে শিক্ষক কর্তৃক ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ :: সেন্টমার্টিনদ্বীপের সরকারী প্রাইমারী স্কুলে শিক্ষক কর্তৃক ৪র্থ শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। এনিয়ে বৃহষ্পতিবার ২৮ নভেম্বর দুপুরে ম্যানেজিং কমিটির জরুরী সভায় অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। স্কুলের প্রধান শিক্ষক এবং সেন্টমার্টিনদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
সেন্টমার্টিনদ্বীপ সরকারী প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মাস্টার মোঃ রফিক ২৮ নভেম্বর রাতে জানিয়েছেন, ‘সমাপণী পরিক্ষা সংক্রান্ত জরুরী কাজে এবং ছুটিতে আমি টেকনাফে ছিলাম। প্যারা টিচার জাহেদ হোসেনের মাধ্যমে জানতে পারি স্কুলের সহকারী শিক্ষক ফয়সাল উদ্দিন মাহমুদ বুধবার ২৭ নভেম্বর স্কুল ছুটির পর ৪র্থ শ্রেনীর এক ছাত্রীকে স্কুল ভবনের নিজে থাকার কক্ষে নিয়ে জোরপুর্বক ধর্ষণ চেষ্টা চালায়। ঘটনা জানতে পেরে ছুটি বাতিল করে বৃহষ্পতিবার ২৮ নভেম্বর স্কুলে উপস্থিত হলে ঘটনার শিকার ছাত্রী অভিভাবকসহ এসে লিখিত অভিযোগ দাখিল করে। বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে অবহিত করা হলে তিনি ম্যানেজিং কমিটির জরুরী সভা করার পরামর্শ দেন। ২৮ নভেম্বর দুপুরে ম্যানেজিং কমিটির জরুরী সভা অনুষ্টিত হয়। ম্যানেজিং কমিটির সভায় উক্ত ছাত্রী উপস্থিত হয়ে সকলের সামনে ঘটনার বর্ণণা দেয়। সভায় ঘটনার পর্যালোচনায় অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। তবে অভিযুক্ত শিক্ষক অভিযোগ অস্বীকার করেন। এরপর অভিযুক্ত শিক্ষক ছুটি না নিয়ে দ্বীপ ছেড়ে চলে যান’।
সেন্টমার্টিনদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ নুর আহমদ বলেন, ‘অভিযোগ শুনেছি। বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিধায় ইউএনও মহোদয়ের সাথে পরামর্শ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে’।
জানা যায়, অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক ফয়সাল উদ্দিন মাহমুদ এর বাড়ি টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের রোজারঘোনা গ্রামে। গত ১ বছর আগে তিনি সেন্টমার্টিনদ্বীপের একমাত্র সরকারী প্রাইমারী স্কুলে সহকারী শিক্ষক পদে যোগদান করেন। তাঁর বিরুদ্ধে ইতিপুর্বেও লাম্পট্যের একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সেন্টমার্টিনদ্বীপ সরকারী প্রাইমারী স্কুলে এর আগেও এ ধরণের ঘটনা ঘটেছিল।
টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘অভিযোগ শোনার পরপরই জঘন্যতম ঘটনার বিষয়টি জেলা শিক্ষা অফিসার মহোদয়কে তাৎক্ষণিক টেলিফোনে অবহিত করা হয়েছে। তাঁর নির্দেশনা মতে এ ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পেকুয়ার সেই আলোচিত মাহফিলে আসতে পারেনি মিজান আযহারী ও তারেক মনোয়ার

It's only fair to share...000শাহেদ মিজান :: পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের বারবাকিয়া বাজার ব্রিজের দক্ষিণ ...

error: Content is protected !!