Home » Uncategorized » ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমপর্ণের খবরে তোলপাড়

ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমপর্ণের খবরে তোলপাড়

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

নিউজ ডেস্ক ::

ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমপর্ণের খবরে কক্সবাজারে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এই খবরে ইয়াবা গডফাদাররা খুশি হলেও সাধারণ মানুষ অখুশি। তারা চায় জাতি ধ্বংসকারি ইয়াবা কারবারিদের উপযুক্ত শাস্তি। আর ইতিমধ্যে বন্দুক যুদ্ধে নিহতদের পরিবারের মাঝে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে যাদের মারা হয়েছে তাদের এই সুযোগ না দিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে কেন ? চুনোপুটিদের মারার পর এখন যখন ইয়াবা গডফাদারদের পালা তখন আওয়াজ উঠছে আত্মসমপর্ণের কথা। চুনোপুটিদের যারা ব্যবহার করেছেন তারা তাদের জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করেননি। এখন নিজেরা বাঁচার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছেন।

সম্প্রতি বিভিন্ন মিডিয়ায় ও সামাজিক গণমাধ্যমে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্ণের মাধ্যমে ক্ষমা করে দেয়ার খবর প্রচার শুরু হয়েছে। আত্মসমপর্ণ করে বাঁচার জন্য মোটা অংকের টাকা নিয়ে মাঠে নেমেছে ইয়াবা কারবারিরা। এসব নানা আলোচনা সমালোচনায় তোলপাড় হয়ে উঠেছে কক্সবাজার।

এর মধ্যে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ইয়াবা কারবারিসহ এলাকার মানুষকে জড়ো করে সকল ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমপর্ণ করার আহবান জানান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় শীর্ষে থাকা ইয়াবা ব্যবসায়ী ১০ম জাতীয় সংসদের সদস্য আবদুর রহমান বদি।

আবদুর রহমান বদি বলেন,“ তোমরা যারা ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত আছ, যারা তালিকাভুক্ত বা তালিকাভুক্তের বাইরে আছ তোমরা আত্মসমপর্ণ করো। আগামি ৫ দিনের মধ্যে ইয়াবা কারবারিরা আমার সাথে যোগাযোগ কর। আমি আত্মসমপর্ণ করিয়ে দেব। যা করেছো করেছো, আর করবেনা। এসো সবাই মিলেমিশে তোয়াবা করে টেকনাফের মধ্যে এটা প্রমান করবো আমরা ইয়াবামুক্ত হয়েছি।” শুক্রবার সন্ধ্যায় টেকনাফের লামাবাজারে নিজের বাড়িতে স্ত্রীকে নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহমান বদি।

ইয়াবা চোরাচালানে জড়িতদের আত্মসমর্পণের জন্য পাঁচ দিনের সময়ও বেঁধে দিয়ে তিনি বলেন, “উখিয়া-টেকনাফে কোনো ইয়াবা ব্যবসায়ী থাকতে পারবে না। কেউ যদি আত্মসমর্পণ না করে, পরে তাদের পরিণতি ভয়াবহ হবে। টেকনাফের ছেলেহারা মা-বাবা, স্বামীহারা স্ত্রী ও বাবাহারা সস্তানদের কথা চিন্তা করে এ উদ্যোগ নিয়েছি।
এদিকে আবদুর রহমান বদির এমন বক্তব্যের পর নানা আলোচনা সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তালিকায় ইয়াবা কারবারিদের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আবদুর রহমান বদির নাম। গত দুই মেয়াদের এই সাংসদের বিরুদ্ধে ইয়াবা কারবারিদের মদদ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। ইয়াবা পাচারের ‘হোতা’ হিসেবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তালিকায় নাম রয়েছিল তার। গত বছর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাদকবিরোধী অভিযানে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহতদের মধ্যে বদির এক বেয়াইও ছিলেন। ইয়াবা কারবারিদের তালিকায় তিনিসহ তার পরিবার ও নিকট আত্মীয়ের ২৫ জনের নাম রয়েছে।

এসব কারণে সমালোচিত বদি এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি, তার স্ত্রী শাহিন আকতার চৌধুরী নৌকার প্রার্থী হিসেবে কক্সবাজার-৪ (টেকনাফ-উখিয়া) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

এদিকে তালিকায় শীর্ষে থাকা ইয়াবা কারবারি আবদুর রহমান বদি সবাইকে আত্মসমপর্ণের কথা বলেছেন। কিন্তু তাকে কে আত্মসমপর্ণ করাবে এই প্রশ্ন তুলে টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর জানান, ইয়াবা কারবারিদের শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন। তা না হলে সবাই এই সুযোগকে পূঁজি করে সবাই ইয়াবা কারবারে জড়িয়ে পড়বে। পরে আত্মসমর্পণের মাধ্যমে নিজেকে বাঁচিয়ে নেবে।

টেকনাফের বহুল আলোচিত কমিশনার একরাম হত্যাকান্ডের একরামুল হকের স্ত্রী আয়েশা বেগম জানান, ইয়াবায় জড়িত না থেকেও বিনা অপরাধে আমার স্বামীকে প্রাণ দিত হলো র‌্যাবের হাতে। আর এখন যারা প্রকৃত ইয়াবা কারবারি তাদের আত্মসমপর্ণের নামে বাঁচিয়ে দেয়া যদি হয়, তাহলে এটা কেমন বিচার ? যদি তাই হয় তাহলে আমার স্বামীকে ফিরিয়ে দিতে হবে। তিনি বলেন, রাজনৈতিক কারনে যারা আমার স্বামীকে হত্যার করতে ষড়যন্ত্র করেছে তারা এখন আত্মসমপর্ণের নামে বাঁচার চেষ্টা করছেন।
টেকনাফ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ গুরা মিয়া জানান, আমাদের এমপি বদি সাহেব সীমান্তে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমপর্ণের কথা বলেছেন। এটা ভাল কথা , কিন্তু যারা হাজার কোটি টাকা এ কারবারে হাতিয়ে নিয়ে বিদেশ পাড়ি দিয়েছেন এবং দেশে নানা স্থাপনা করেছেন তাদের কি হবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় এমপি আবদুর রহমান বদির নাম শীর্ষে রয়েছে। এখন তাদের ব্যাপারে কি হবে।

তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি জানান,“ জলদস্যু আর ইয়াবা বিয়ারী এক জিনিস নয়। জলদস্যুরা দস্যুমি করে হয়তো গুটি কয়েকজনকে হত্যা করেছে কিংবা কিছু টাকা পয়সা কেড়ে নিয়ে সংসার চালিয়েছে । কিন্তু ইয়াবা বিয়ারিরা সমাজসহ পুরো জাতিকে ধ্বংস করেছে।”

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো: আলী জানান, মুলত যারা ইয়াবা বাণিজ্যে জড়িত রয়েছে তাদের শাস্তি হওয়া দরকার। তালিকায় থাকলে এটা প্রমান করে না যে , তারা সবাই ইয়াবা ব্যবসায়ী। অপরাধ না করে তালিকায় থাকলে তাদেরকে আত্মসমপর্ণ করতে হবে ্এটা মানে হতে পারেনা। আর যারা আসলে জড়িত তাদের শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, কোন অপরাধী অপরাধ স্বীকার করে আত্মসমপর্ণ করতে চাইলে তা স্বরাষ্ট মন্ত্রণালয় বিবেচনা করবে। এমপি আবদুর রহমান বদি জনপ্রতিনিধি হিসেবে হয়তো নিজ তাগিদে সবাইকে আত্মসমপর্ণ হওয়ার জন্য বলেছেন। এখনো পর্যন্ত ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমপর্ণের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রোহিঙ্গারা কোথায় জানেন না ট্রাম্প

It's only fair to share...000অনলাইন ডেস্ক ::   রোহিঙ্গা গণহত্যার ঘটনায় কয়েক দফায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ...

error: Content is protected !!