Home » কক্সবাজার » চকরিয়ায় বনকর্মিকে পিটিয়ে বন্দুক লুট: ১২ ঘন্টা পর উদ্ধার

চকরিয়ায় বনকর্মিকে পিটিয়ে বন্দুক লুট: ১২ ঘন্টা পর উদ্ধার

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page
মনির আহমদ, চকরিয়া, কক্সবাজার ::
 কক্সবাজারের উত্তর বনবিভাগের ফুলছড়ি বনবিটে একদল সন্ত্রাসী ২ বনপ্রহরীকে পিটিয়ে আহত করে একটি বন্দুক লুট করেছে। লুটের ১২ ঘন্টা পরে কক্সবাজারের বিভাগীয় বনকর্মতা চকরিয়ার পুলিশের সহায়তায় লুটকরা বন্দুকটি উদ্ধার করেছে। দা-র কোপে গুরুতর আহত বনপ্রহরী আল আমিনকে প্রথমে চকরিয়া মেমোরিয়াল খৃষ্টান হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। তার মাথায় অন্তত ৫টি কোপের আঘাত রয়েছে। অপর আহত এফজি উত্তমকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় জুম নগর টং ঘরের নিকট এ ঘটনা ঘটে।
সরে জমিনে রেঞ্জকর্মকর্তা মোহাং জাকারিয়া জানান, কক্সবাজারের উত্তর বনবিভাগের ফুলছড়ি বনবিটেরর অধিন চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী জুমনগর টং ঘরে প্রতিদিনের মত পাহারা দিতে যান ফুলছড়ি বনবিটের ২ বনপ্রহরী আল আমিন ও উত্তম। রাত ১০ টার দিকে একদল বনদস্যু টংঘরের নিকটের ২০০৪-৫ সালের সামাজিক বনায়নের আকাশমনি কাটা শুরু করে। বন প্রহরীরা বাধা দিলে অজ্ঞাত বন্দুক ধারী কয়েক জন ফাঁকা গুলি ছুড়ে ২বনপ্রহরীর উপর অতর্কিত হামলা চালায়। বনপ্রহরী আল আমিন মাটিতে লুটিয়ে পড়লে অপর বনপ্রহরী উত্তম কোন ররকমে পালিয়ে প্রাণ রক্ষা করে। এসময় দদুষ্কৃতকারীরা আল আমিনের বন্দুকটি লুটে নিয়ে ফাঁকা গুলি করে আতংক সৃষ্টি করে অন্ধকারে হারিয়ে যায়। খবর পেয়ে ফুলছড়ি বিটকর্মকর্তা অতিরিক্ত বনপ্রহরী নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করেন।
 আহত বনকর্মিকে প্রথমে চকরিয়ার মালুমঘাট খৃষ্টান হাসপাতাল এবং পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।শুক্রবার সকাল ১০টায় বিভাগীয় বনকর্মকর্তা হক মাহবুব মোর্শেদ সংশ্লিষ্ট বনকর্মকর্তা কর্মচারিরা চকরিয়া থানার পুলিশের সহায়তায় ঘটনাস্থল থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় লুটে নেয়া বন্দুকটি ও কয়েক টুকরা কাট উদ্ধার করেছে। রাতের আঁধারে সামাজিক বনায়নের গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনার সুত্রপাত বলে এলাকাবাসি জানিয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়,ওই এলাকার জুমনগর টংঘরের পার্শ্বে রাত ১০টার দিকে একদল সন্ত্রাসী সামাজিক বনায়নের কাছ কাটছিল। খবর পেয়ে ক্যশিয়ার নামধারী এফজি আল আমিন ও এফজি উত্তম ঘটনাস্থলে গিয়ে বাধা দেন। এ সময় সন্ত্রাসীরা ফাঁকা গুলি করে বনকর্মি আল আমিনের উপর হামলা করে। পরিস্থিতি খারাপ দেখে উত্তম নামের ২য় জন পালিয়ে যায়।
সংশ্লিষ্ট বনরেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) মোহাম্মদ বেলায়েত হোসন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। এবং চকরিয়া থানায় এ ব্যপারে মামলা দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু রবিবার

It's only fair to share...32300চকরিয়া নিউজ ডেস্ক ::   প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু ...