Home » Uncategorized » বন রক্ষায় সামাজিক বনায়ন সরকারের অন্যতম অঙ্গীকার -বন সংরক্ষক

বন রক্ষায় সামাজিক বনায়ন সরকারের অন্যতম অঙ্গীকার -বন সংরক্ষক

It's only fair to share...Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

ggggএম.শাহজাহান চৌধুরী শাহীন,কক্সবাজার ॥

সামাজিক বনায়নে উপকারভোগীদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য সরকার প্রকল্প হাতে নিয়েছে। তার সুফল ইতোমধ্যে উপকারভোগীরা পেতে যাচ্ছেন। বন ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ব্যাপক হারে সামাজিক বনায়ন সৃষ্টি বর্তমান সরকারের অন্যতম অঙ্গীকার। প্রধানমন্ত্রী সব সময় সজাগ রয়েছেন। কিভাবে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন করা যায়।

গত ২১ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় সমুদ্র সৈকতের বন কল্লোল বিশ্রামাগারে কক্সবাজার বন অধিদপ্তর আয়োজিত উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা শাহ-ই-আলমের বিদায় ও বন কর্মকর্তা (চঃদঃ) কেরামত আলী মল্লিকের দায়িত্ব ভার গ্রহণ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি একথা বলেছেন।

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের উপ-বন সংরক্ষক মোঃ আলী কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, লামা বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম।

বন সংরক্ষক মোঃ আবদুল লতিফ মিয়া আরো বলেন, সামাজিক বনায়নের কর্মসূচীর মাধ্যমে পরিবেশ ভারসাম্য রক্ষা ও দারিদ্র বিমোচনের মাধ্যমে আত্ম নির্ভরশীল করা হচ্ছে। এছাড়াও বননির্ভরশলী ব্যক্তিদেরকে পূর্ণবাসন করার জন্য বিকল্প জীবিকায়নের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির যুগান্তরকারী পদক্ষেপ প্রশাংসার দাবী রাখে। বনাঞ্চল ও বন্যপ্রাণী রক্ষা করে পরিবেশ বির্পযয়ের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সকল শ্রেণীর পেশার সচেতন নাগরিককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন,ফাঁসিয়া খালী রেঞ্জ কর্মকর্তা এবিএম জসিম উদ্দিন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সহকারী বন সংরক্ষক মোঃ ইউছুপ, কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা দীপু, ফাসিয়াখালী বন সহব্যবস্থাপনা কমিটির অধ্যাক্ষ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী প্রমূখ।

ঈদগাও রেঞ্জ কর্মকর্তা শেখর রায় চৌধুরী সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উত্তর ও দক্ষিণ বনবিভাগের বিভিন্ন রেঞ্জ ও বনবিট কর্মকর্তা কর্মকর্তা কর্মচারী, ভিলেজার, উপকারভোগী ছাড়াও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি, সুধী ও সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বিদায়ী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা শাহ-ই-আলমের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বন রক্ষা, সামাজিক বনায়ন সফল ভাবে কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে। উপস্থিত সুধীবৃন্দ তার কর্মকান্ডের বিশদ বিবরণ দিয়ে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

পরে কক্সবাজার বন প্রহরী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আবু শামা আবু, সাধারণ সম্পাদক তপন পাল সহ অন্যান্যরা অতিথিদের হাতে ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী তুলে দেন। রাতে আমন্ত্রিতদের সম্মানে নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকালে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা উত্তর বনবিভাগীয় কার্যালয়ে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (চঃদঃ) কেরামত আলী মল্লিকের কাছে দায়িত্ব ভার হস্তান্তর করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

কক্সবাজার শহরে ২০ স্পটে যানজট বিরোধী অভিযান

It's only fair to share...000ইমাম খাইর, কক্সবাজার : কক্সবাজার শহরকে যানজট মুক্ত করতে অন্তত ২০টি স্পটে ...